রোববার   ২০ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৫ ১৪২৬   ২০ সফর ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
ফাদার রিগনের মৃত্যুবার্ষিকী আজ বিকেলে যুবলীগ নেতাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক অখ্যাত মায়োর্কার মাঠে রিয়ালের প্রথম হার টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ মাদক ব্যবসায়ী নিহত শ্রমিকের স্বার্থে কাজ করছে সরকার: শ্রম প্রতিমন্ত্রী যুবলীগ থেকে বহিষ্কার কাউন্সিলর রাজীব টেকনাফে পৃথক অভিযানে ইয়াবাসহ ৩ রোহিঙ্গা আটক রাজীবের মোহাম্মদপুরের বাসায় অভিযান পরিচালনা করছে র‌্যাব অস্ত্র ও মাদকসহ রাজীবকে আটক করেছে র‌্যাব কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজিব গ্রেফতার আসছে ‘জলের গান’র অ্যালবাম, থাকছে বারী সিদ্দিকীর গান বছর শেষ হলেই বাতিল হচ্ছে ২ হাজার রুপির নোট ঢাকায় আসছেন নিউইয়র্ক সিটির ৫ সিনেটর বাকেরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত দাইয়ুস জান্নাতে যাবে না ড্রাগনের রক্ত বয়ে চলেছে যে গাছ! বালিশকাণ্ডের মতো কলঙ্কজনক কাজ যেন না হয় :পরিকল্পনামন্ত্রী দলে অনুপ্রবেশকারীদের জায়গা দেওয়া হবে না: নাসিম দোয়া পাওয়ার জন্য রাজনীতি করি : শামীম ওসমান আর্থিক সংকটে দুদিন বন্ধ জাতিসংঘ
১৬

খিলক্ষেতে বোমা হামলা: ৫ জেএমবির ১২ বছরের দণ্ড

প্রকাশিত: ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

রাজধানীর খিলক্ষেতে বোমা হামলার ঘটনায় ৫ জেএমবি সদস্যকে ১২ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন ঢাকার একটি আদালত। ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট দেশজুড়ে সিরিজ বোমা হামলার অংশ হিসেবে খিলক্ষেতে ওইদিন এ হামলা চালানো হয়েছিল। 

রোববার (২২ সেপ্টেম্বর) স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক মো. আল মামুন তিন আসামির উপস্থিতিতে এ রায় দেন। আদালতে উপস্থিত ছিলেন- আব্দুল্লাহ আল সুহাইল, আব্দুর রহমান মাসুক এবং নূরুল ইসলাম ওরফে উজ্জল।  

দণ্ডপ্রাপ্ত বাকি দুই আসামি হলেন-হাবিবুর রহমান হাবিব ও মো. মুসা ওরফে মোস্তাফিজুর রহমান পলাতক রয়েছে। 

রায়ে একই সঙ্গে আদালত প্রত্যেককে ৩০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেছেন। অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।   

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মো. শাহাবুদ্দিন জানান, জেএমবির সুরা সদস্য আতাউর রহমান সানিও এই মামলার আসামি ছিলেন। তবে এর আগেই অন্য মামলায় মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়ায় তাকে এই মামলা থেকে বাদ দেওয়া হয়।

মামলার বিবরণীতে জানা যায়, ২০০৫ সালে ১৭ আগস্ট আসামিরা ঢাকার খিলক্ষেত ওভারব্রিজের কাছে বোমা বিস্ফোরণ ঘটায়। ওই ঘটনায় খিলক্ষেত থানার তৎকালীন এএসআই কাউছার আলম বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন।  

২০০৫ সালের ২ নভেম্বর এই ৫ আসামির বিরুদ্ধে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের ৩ ও ৬ ধারায় চার্জশিট দাখিল করা হয়। ওই বছরের ২০ নভেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র গ্রহণ করেন আদালত। 

এরপর আরও দুই দফায় দেওয়া সম্পূরক অভিযোগপত্রে আবদুল্লাহ আল সুহাইলকে অভিযুক্ত করা হয়। ২০০৬ সালের ১২ জুন তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়।

মামলায় মোট ১৯ জন বিভিন্ন সময় সাক্ষ্য দেন। এরপর মামলার যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে এই রায় দিয়েছেন আদালত। 

এই বিভাগের আরো খবর