সোমবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৪ ১৪২৬   ১১ রবিউস সানি ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
বিমসটেকের সঙ্গে কাজ করবে জাতীয় সংসদ : স্পিকার বেগম রোকেয়া দিবস আজ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ সালমান-ক্যাটরিনার বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সনু নিগমের গান এনডিসি গ্র্যাজুয়েটদের জ্ঞান উন্নয়নের কাজে লাগানোর আহ্বান ভিপি নুরকে কাজে লাগিয়ে চলছে বিএনপির অপরাজনীতি! চাঞ্চল্যকর মামলা নিবিড় তদারকির নির্দেশ আইজিপির বরিশালে ভেজাল মিশিয়ে তৈরি হয় ব্রান্ডের ভূষি বঙ্গবন্ধু বিপিএলের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী মাছ দিয়ে পদ পাওয়া যাচ্ছে সিংড়া বিএনপিতে, কমিটি নিয়ে অসন্তোষ চরমে! মাদক সেবনকালে নয়াপল্টন এলাকা থেকে ৭ বিএনপি কর্মী আটক! পরকীয়ায় ব্যস্ত খালেদার আইনজীবী, জামিনে মনোযোগ নেই! নারীরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে এগিয়ে যাবেন নারীর স্বনির্ভরতা অর্জনে সকলকে একযোগে কাজ করতে রাষ্ট্রপতির আহবান সচিবালয়ের আশপাশে হর্ন বাজালেই জেল-জরিমানা পরস্পরের সালাম শুভেচ্ছা বিনিময়ের শ্রেষ্ঠ প্রথা মানবাধিকার দিবসে প্রকাশ্যে আসছেন এসিডদগ্ধ দীপিকা দেশের প্রথম আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর নির্মাণকাজের উদ্বোধন শুরু হলো বঙ্গবন্ধু বিপিএলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান বিজয়ীদের চলচ্চিত্র পুরস্কার তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী
৭৬৯

কোরবানির কিছু জরুরি বিধান

প্রকাশিত: ৭ আগস্ট ২০১৯  

প্রত্যেক মুসলমানদের উপর কোরবানির কিছু জরুরি বিধান রয়েছে ঃ

(১) কোনো ব্যক্তি যদি পশু কেনার করার সময় শরিক না নেয়ার ইচ্ছা থাকে, পরবর্তীতে শরিক নিতে চায়, তাহলে ক্রেতা গরিব হলে শরিক নিতে পারবে না, ধনী হলে পারবে।

(২) যার সব উপার্জন বা অধিকাংশ উপার্জন হারাম, তাকে শরিক হিসেবে নিলে অন্যদের কোরবানিও নষ্ট হয়ে যাবে।

(৩) যদি কোরবানির পশু কেনার সময় সব অংশীদারের ওয়াজিব কোরবানি আদায় করার নিয়ত থাকে, তাহলে পশু খরিদ করার পর ৭ জন পর্যন্ত নতুন অংশীদার নেয়া যাবে। কিন্তু যদি তাদের মধ্য থেকে একজন নফল কোরবানি করার ইচ্ছা করেন, তাহলে আর অতিরিক্ত শরিক নেয়া যাবে না।

তাই শরিক নেয়ার বিষয়টি পশু খরিদ করার আগেই চূড়ান্ত করে নেয়া উচিত।

ঋণ করে কোরবানি করা

কোনো ব্যক্তির ওপর সম্পদের হিসাবে কোরবানি করা ওয়াজিব। কিন্তু তার কাছে নগদ অর্থ নেই, আবার সে কোরবানির জন্য সম্পদ বিক্রিও করতে চায় না, তাহলে সে প্রয়োজনে ঋণ করে হলেও কোরবানি করবে। যেমন সে তার অন্য প্রয়োজনে ঋণ করে থাকে।

মৃত ব্যক্তির নামে কোরবানি

মৃত ব্যক্তির নামে কোরবানি করা জায়েজ আছে। এটি হাদিস দ্বারা প্রমাণিত। এক্ষেত্রে মৃত ব্যক্তি সওয়াবের অধিকারী হবেন এবং এ কোরবানির গোশত সাধারণ কোরবানির মতো যা ইচ্ছা তা-ই করতে পারবে- খেতেও পারবে আবার দানও করতে পারবে।

তবে কোরবানি যদি মৃত ব্যক্তির ওসিয়তের ভিত্তিতে হয়, তাহলে সে কোরবানির গোশত কোরবানিদাতার ওপর খাওয়া জায়েজ নয়, বরং তা সদকা করে দিতে হবে।

জীবিত মানুষের নামে কোরবানি

জীবিত মানুষ একজন অপরজনের পক্ষ থেকে কোরবানি করলে কোরবানি শুদ্ধ হয় এবং যার পক্ষ থেকে করা হয়েছে, সে তার সওয়াব পেয়ে যায়। আর যদি তার নির্দেশক্রমে হয়, তাহলে তার ওয়াজিব কোরবানি আদায় হয়ে যায়।

এই বিভাগের আরো খবর