মঙ্গলবার   ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ১ ১৪২৬   ১৭ মুহররম ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রী ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করবেন আজ রোহিঙ্গা ভোটার: ইসি কর্মচারীসহ আটক ৩ রিফাত-মিন্নির নতুন ভিডিও, বেরিয়ে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য ‘বিজ্ঞান-প্রযুক্তির বিকাশ ছাড়া দেশ উন্নয়ন করা সম্ভব নয়’ রোহিঙ্গা ভোটার খতিয়ে দেখতে চট্টগ্রামে কবিতা খানম আগামী ১০মাসের রোডম্যাপ তৈরি ও তার বাস্তবায়ন করবো - জয় ও লেখক ডেঙ্গুতে সরকারি হিসেবে ৬৮ জনের মৃত্যু আ. লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা ১৮ সেপ্টেম্বর বরিশাল নগরীতে আসছে স্মার্ট এলইডি লাইটিং বঙ্গবন্ধুর নাতনি টিউলিপের জন্মদিন আজ আজ থেকে ট্রাকে পেঁয়াজ বিক্রি করবে টিসিবি বিশ্ব ওজন দিবস আজ শিগগিরই বন্দর-ট্রেনে যুক্ত হচ্ছে ত্রিপুরা-বাংলাদেশ দিল্লিতে শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠক ৫ অক্টোবর সারাদেশে ৭৫ প্রতিষ্ঠানকে পাঁচ লক্ষাধিক টাকা জরিমানা প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ এ পি জে আব্দুল কালাম স্মৃতি পুরস্কারে ভূষিত শেখ হাসিনা টস হেরে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ বরিশালকে যানজট মুক্ত রাখতে কাজ করছে ট্রাফিক সদস্যরা- ডিসি ট্রাফিক সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করুন : প্রধানমন্ত্রী
২৫

কেন মুহাররমের নয় তারিখও সিয়াম পালন করবেন?

প্রকাশিত: ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

 

ইমাম নববি (রহ.) বলেন, মুহাররমের নয় তারিখ সিয়াম মুস্তাহাব হবার হিকমত প্রসঙ্গে আমাদের সাথি এবং অন্যান্য আলিমরা বিভিন্ন মতামত ব্যক্ত করেছেন—

এক. এর উদ্দেশ্য হলো, ইহুদিদের বিরোধিতা করা। কারণ তারা কেবল একটি অর্থাৎ মুহাররমের দশ তারিখ সিয়াম পালন করতো।

দুই. আশুরার দিনের সিয়ামকে অন্য আরেকটি সিয়ামের সম্পৃক্ত করা। যেমনিভাবে এককভাবে জুময়ার দিন সিয়াম পালন করা থেকে নিষেধ করা হয়েছে। ইমাম খাত্তাবি ও অন্যান্যদের মত এটি। 

তিন. দশ তারিখের সিয়ামের ক্ষেত্রে চন্দ্র গণনায় ত্রুটি হয়ে ভুলে পতিত হবার আশঙ্কা থেকে বাঁচার উদ্দেশ্যে। হতে পারে গণনায় নয় তারিখ, কিন্তু বাস্তবে তা দশ তারিখ। 

আহলে কিতাবের বিরোধিতাই এর মধ্যে সর্বাধিক শক্তিশালী কারণ। শাইখুল ইসলাম ইমাম ইবনু তাইমিয়া (রহ.) বলেছেন, রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বহু হাদিসে আহলে কিতাবদের সাদৃশ্য গ্রহণ করতে নিষেধ করেছেন। যেমন, আশুরার ক্ষেত্রে তিনি বলেছেন,

لَئِنْ عِشْتُ إلَى قَابِلٍ لاَصُومَنَّ التَّاسِعَ

‘যদি আমি আগামি বছর বেঁচে থাকি, তাহলে অবশ্যই নয় তারিখও সিয়াম রাখব।’ 

ইমাম ইবনু হাজার আসকালানি (রহ.) উপরোক্ত হাদিসের ব্যাখ্যায় বলেছেন যে, নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নয় তারিখে সিয়াম পালনের ইচ্ছা প্রকাশ করার উদ্দেশ্য এই নয় যে, তিনি কেবল নয় তারিখেই সিয়াম পালনের  ইচ্ছা করেছেন বরং তাঁর উদ্দেশ্য হচ্ছে, দশ তারিখের সিয়ামের সাথে নয় তারিখের সিয়ামকে সংযুক্ত করা। সাবধানতা বশত কিংবা ইহুদি-খৃস্টানদের বিরোধিতার জন্যে। এটিই অগ্রগণ্য মত। সহিহ মুসলিমের কিছু বর্ণনাও এদিকেই ইঙ্গিত করে। [আসকালানি, ফাতহুল বারি, ৪/২৪৫]

শুধু দশ তারিখ সিয়াম রাখার বিধান

ইমাম ইবনু তাইমিয়া (রহ.) বলেন, ‘আশুরার সিয়াম এক বছরের গুনাহের কাফফারা আর শুধুমাত্র আশুরার একদিন সিয়াম পালন মাকরুহ হবে না।’ [ইবনু তাইমিয়্যাহ, আল-ফাতাওয়া আল-কুবরা]

ইবনু হাজার হায়সামি রচিত তুহফাতুল মুহতাজ গ্রন্থে আছে, ‘আশুরার ক্ষেত্রে কেবল দশ তারিখ একটি সিয়াম রাখাতে কোনো অসুবিধা নেই।’

এই বিভাগের আরো খবর