মঙ্গলবার   ১২ নভেম্বর ২০১৯   কার্তিক ২৮ ১৪২৬   ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
হাসানাত আবদুল্লাহ নির্দেশে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স জেনারেটর জনসভায় কথা বলার ভয় কাটিয়ে ওঠার উপায় নৌ স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে ভারত: রীভা গাঙ্গুলি নাসের আল-খেলাইফি: জেলে থেকে ফরাসি ফুটবলের ‘সম্রাট’ এজেন্টদের টাকা দিয়ে মালয়েশিয়া গেলে পুনঃনিয়োগের অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটাক্ষ করলে ক্ষমা করা হবে না: কাদের র‌্যাব-৮ এর অভিযানে ১১,৫০০ কেজি নিষিদ্ধ পলিথিন উদ্ধার ট্রেন দুর্ঘটনা : তূর্ণা নিশীথার মাস্টার-সহকারী মাস্টার বরখাস্ত মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকরিতে প্রতারণা : রাজস্ব কর্মকর্তার কারাদণ্ড ঘূর্ণিঝড় বুলবুল : কৃষি ফসলের ক্ষতি ২৬৩ কোটি টাকা চার দিনের সফরে আজ নেপাল গেলেন রাষ্ট্রপতি ট্রেন দুর্ঘটনায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর শোক শুধু কৃষিতে নির্ভর না করে শিল্প উৎপাদন বাড়াতে হবে: প্রধানমন্ত্রী রেল দুর্ঘটনা: সংশ্লিষ্টদের সতর্ক হওয়ার নির্দেশ ৬ ঘণ্টা পর চালু হলো ঢাকা-চট্টগ্রাম রেল যোগাযোগ ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহতের পরিবারকে ১ লাখ,আহতদের ১০ হাজার দেয়ার ঘোষণা নুসরাত হত্যা:ফাঁসির আসামিদের পাঠানো হলো কুমিল্লা কারাগারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় দুর্ঘটনাস্থলে রেলমন্ত্রী দুই ট্রাভেল এজেন্সিতে র‌্যাবের অভিযান, ১০৫০ পাসপোর্ট জব্দ কসবায় ট্রেন সংঘর্ষে হতাহতের ঘটনায় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক
২৯

কিডনি প্রতিস্থাপন কখন, কীভাবে, কোথায় করাবেন?

প্রকাশিত: ৩১ অক্টোবর ২০১৯  

যদি কোনো রোগীর কিডনি কাজ না করে, তবে তাকে আগের মতো স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে কিডনি প্রতিস্থাপন করার জন্য চিকিৎসা নেওয়ার প্রয়োজন হয়। ১৯৫০ সাল থেকে কিডনি প্রতিস্থাপন শুরু হয় এবং তখন থেকেই কীভাবে ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ও কিডনি প্রত্যাখ্যান প্রতিরোধ করা যায় তা জানার চেষ্টা হচ্ছে। কিডনি প্রতিস্থাপন হলেই যে একটি রোগী সম্পূর্ণ সু্স্থ হয়ে যাবে। তা কিন্তু না_ রোগীকে আজীবন ওষুধ খেতে হবে। একটি সফল কিডনি প্রতিস্থাপন নির্ভর করে মেডিকেল টিমের (কিডনি বিশেষজ্ঞ, কিডনি প্রতিস্থাপন সার্জন, ফার্মাসিস্ট, সমাজকর্মী) সম্মিলিত প্রয়াসে। কিন্তু সবচেয়ে বড় সাহায্য লাগে রোগীর নিজের ও রোগীর পরিবারের সদস্যদের। রোগীর নিজ ও রোগীর পরিবারের সদস্য এবং মেডিকেল টিমের সম্মিলিত সেবায় রোগী সুস্থ ও স্বাভাবিক কর্মজীবন লাভ করতে পারেন।

কিডনির কার্যকারিতা যখন হারায় : সুস্থ কিডনি অতিরিক্ত পানি, মিনারেল ও বর্জ্য পদার্থ শরীর থেকে বের করে দেয়। কিডনি অবশ্য হরমোন তৈরি করে আমাদের শরীর সুস্থ ও হাড় শক্ত রাখে। যখন কিডনি কার্যকারিতা হারায়, ক্ষতিকর বর্জ্য শরীরে জমা হয়ে রক্তচাপ বাড়ায়, শরীরে অতিরিক্ত পানি জমা হয় এবং পর্যাপ্ত লোহিত রক্তকণিকা তৈরি হয় না। তখন রোগীর অকার্যকর কিডনির প্রতিস্থাপন প্রয়োজন হয়।

যেভাবে প্রতিস্থাপিত কিডনি কাজ করে : কিডনি প্রতিস্থাপন হচ্ছে একজন অসুস্থ মানুষের অকার্যকর কিডনির বদলে কোনো সুস্থ মানুষের কিডনি স্থাপন করা। নতুন স্থাপিত কিডনি অকার্যকর কিডনির বদলে কাজ করে। কিডনি সার্জন নতুন কিডনি তলপেটে স্থাপন এবং রক্তনালির সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করেন। নতুন স্থাপিত কিডনির ভেতর দিয়ে রক্ত প্রবাহিত হওয়ার পর স্বাভাবিক কিডনির মতো মূত্র তৈরি করে। যদি কোনো সংক্রমণ বা উচ্চ রক্তচাপ না হয়, তবে আগের কিডনি রেখে দেওয়া হয়।

কিডনি প্রতিস্থাপন : কিডনি প্রতিস্থাপন সব রোগীর লাগে না। যখন বিকল্প চিকিৎসা না থাকে তখন কিডনি চিকিৎসক পরামর্শ দেন কিডনি প্রতিস্থাপনের। কিডনি প্রতিস্থাপনের আগে কিছু পরীক্ষার প্রয়োজন হয়, যেমন_ রক্ত, এক্স-রে এবং অন্যান্য পরীক্ষা, যা প্রতিস্থাপিত কিডনি রোগীর দেহে ভালো থাকবে কি-না তা জানা যায়। মেডিকেল টিম অবশ্য দেখে রোগী এত বড় অপারেশনের জন্য উপযুক্ত কি-না? ক্যান্সার, সংক্রমণ, হৃদরোগ থাকলে কিডনি প্রতিস্থাপন সফল নাও হতে পারে। যদি কোনো পরিবারের সদস্য অথবা কোনো বন্ধু কিডনি দান করতে ইচ্ছুক হন, কিডনি প্রতিস্থাপন সফলতার জন্য তাকেও কিছু পরীক্ষা করতে হয়। যদি পরিবারের সদস্য অথবা কোনো বন্ধু কিডনি দান করতে ইচ্ছুক না হন, তবে রোগীকে কিডনি প্রতিস্থাপনের অপেক্ষমাণ তালিকায় নাম লিখতে হবে, যাতে কোনো মৃত রোগীর কিডনি প্রতিস্থাপন করা যায় (কিন্তু এটা বাংলাদেশে প্রযোজ্য নয়)। সরকার নিয়মিতভাবে কিডনি দানের উৎকৃষ্ট ও নিরাপদ পন্থা পর্যবেক্ষণ করছে।

কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য কিছু পরীক্ষা দরকার : রক্ত : গ্রহীতার রক্তের গ্রুপ (এ, বি, এবি, ও) অবশ্যই দাতার রক্তের সঙ্গে মিলতে হবে।

এইচএলএ ফ্যাক্টর : এটা হচ্ছে হিউম্যান লিউকোসাইট অ্যান্টিজেন, যা বংশগতভাবে শ্বেত রক্তকণিকায় থাকে।

অ্যান্টিবডি

কিডনি প্রতিস্থাপন অপারেশন : যদি জীবিত মানুষের কিডনি পাওয়া যায়, তবে দাতা এবং গ্রহীতার অপারেশন একই সময়, পাশাপাশি রুমে করা হয়। এক মেডিকেল টিম দাতার কিডনি কেটে আনে, অন্য মেডিকেল টিম গ্রহীতাকে কিডনি গ্রহণের জন্য প্রস্তুত করে। নতুন কিডনির রক্তনালি গ্রহীতার রক্তনালির সঙ্গে সংযুক্ত করা হয়। প্রতিস্থাপিত কিডনির মধ্য দিয়ে রক্ত প্রবাহিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কিডনি মূত্র তৈরি করে। অনেক সময় কয়েক সপ্তাহ সময় লাগে।

কিডনি অপারেশনের পরবর্তী অবস্থা : যে কোনো বড় ধরনের অপারেশনের পর রোগী বেশ অসুস্থ বোধ করতে পারেন। আবার অনেক রোগী অপারেশনের পরপর খুব ভালো বোধ করেন। রোগী সুস্থবোধ করলেও রোগীকে কয়েক সপ্তাহ হাসপাতালে থাকতে হয়। আর যদি জটিলতা

সৃষ্টি হয় তাহলে আরও বেশি দিন হাসপাতালে থাকতে হয়।

কিডনি প্রতিস্থাপন অপারেশন পরবর্তী যত্ন : গ্রহীতার ইমিউনো সিস্টেম নতুন কিডনি বহিরাগত হিসেবে বিবেচনা করে। এজন্য গ্রহীতাকে কিছু ওষুধ খেতে হয়।

নতুন কিডনি প্রত্যাখ্যান :নতুন কিডনি প্রত্যাখ্যান না হওয়ার জন্য যেমন ওষুধ খেতে হয়, তেমনি জ্বর, পেটে ব্যথা ও মূত্র তৈরির পরিমাণের দিকেও লক্ষ্য রাখতে হয়। যদি কোনো সমস্যা হয় তবে সঙ্গে সঙ্গে মেডিকেল টিমকে জানাতে হবে। সবকিছু স্বাভাবিক থাকার পরেও কিডনি প্রত্যাখ্যাত হতে পারে এবং রোগীকে ডায়ালাইসিস করতে হতে পারে।

ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া :কিছু ওষুধ শরীরের ইমিউনো সিস্টেমকে দুর্বল করে। এতে সংক্রমণ হতে পারে। কিছু ওষুধের জন্য মুখে পানি, ওজন বাড়া, মুখে ব্রণ, মুখে চুল হতে পারে। কিন্তু সব রোগীর এ রকম হয় না। এ জন্য সুষম খাদ্য ও সঠিক পরিচর্যা করতে হবে। কিছু ওষুধের জন্য ক্যান্সার, চোখের ছানি, অতিরিক্ত অম্ল, উচ্চ রক্তচাপ, হাড়ের রোগ হতে পারে। অনেক দিন এসব ওষুধ খাওয়ার ফলে লিভার ও কিডনি রোগ হতে পারে।

আর্থিক অবস্থা :কিডনি প্রতিস্থাপন ব্যয়বহুল চিকিৎসা হলেও এখন ঢাকার অনেক হাসপাতালে এ চিকিৎসা করা হয়। বাংলাদেশে ২০০৯ সালে কিডনি প্রতিস্থাপন হয় ১২০টি এবং ২০১০ সালে ১৭৫টি। বাংলাদেশের অনেক নতুন হাসপাতাল এখন কিডনি প্রতিস্থাপনে এগিয়ে আসছে।

কিডনি দান :

মৃত ব্যক্তির কিডনি দান : বিদেশে সবচেয়ে বেশি কিডনি প্রতিস্থাপন হয় মৃত ব্যক্তির কিডনি দান থেকে। কিন্তু বাংলাদেশে কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য মৃত ব্যক্তির কিডনি প্রায়ই পাওয়া যায় না। পরিবারের সদস্যদের অজ্ঞতার জন্য অনেক উপযুক্ত কিডনি কোনো কাজে আসে না। যারা কিডনি দান করতে চান তাদের উচিত এ ব্যাপারে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলা এবং জাতীয় কিডনি ফাউন্ডেশনের উচিত একটি কিডনি দান কার্ড প্রদান করা। কিডনি দান কার্ডে ব্যক্তির কিডনি দানের ইচ্ছার কথা লেখা থাকবে।

জীবিত ব্যক্তির কিডনি দান : জীবিত পারিবারিক সদস্য অথবা বন্ধুদের কিডনি দানের জন্য কিডনি প্রতিস্থাপন ধীরে ধীরে বাড়ছে। কিডনিদাতা ও কিডনি গ্রহীতার কিছু পরীক্ষার প্রয়োজন হয়, যাতে তাদের পরবর্তী জীবন বিপদমুক্ত থাকে। যদিও অনেকেই কোনো রকম বিপদ ছাড়াই কিডনি দান করতে পারেন। বর্তমান আইনে আমাদের দেশে শুধু পারিবারিক সদস্যরা কিডনি দান করতে পারেন।

মৃত ব্যক্তির কিডনি থেকে জীবিত ব্যক্তির কিডনি দান অনেক সুবিধা।

জীবিত পারিবারিক সদস্য অথবা বন্ধুদের কিডনি দানের জন্য কিডনি প্রাপ্যতার ওপর নির্ভর করে না। জীবিত ব্যক্তির কিডনি দানের জন্য অনেক সময় এবং অপারেশনের জন্য উপযুক্ত সময় পাওয়া যায়।

জীবিত পারিবারিক সদস্যের কিডনি অনেক ভালো কাজ করে, যদিও এর কোনো নিশ্চয়তা নেই।

জীবিত ব্যক্তির কিডনি অন্য জায়গা থেকে আনার প্রয়োজন হয় না এবং এজন্য কিডনির অবস্থাও ভালো থাকে।

জীবিত ব্যক্তির কিডনি দান মৃত ব্যক্তির কিডনি দানের তালিকাকে দীর্ঘায়িত করে না।

সরকারি কিডনি প্রতিস্থাপন কেন্দ্র :জাতীয় কিডনি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল, ঢাকা।

বেসরকারি কিডনি প্রতিস্থাপন কেন্দ্র : জাতীয় কিডনি ফাউন্ডেশন ও হাসপাতাল, বারডেম হাসপাতাল, পপুলার স্পেশালাইজড হাসপাতাল, ল্যাবএইড স্পেশালাইজড হাসপাতাল, অ্যাপোলো হাসপাতাল, ইউনাইটেড হাসপাতাল, ঢাকা।

টিস্যু টাইপিং ও অন্যান্য পরীক্ষা কেন্দ্র : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল, বারডেম হাসপাতাল, ফাস্ট ল্যাব, ঢাকা। ফাস্ট ল্যাব রাজধানীতে কিছুদিন আগে যাত্রা শুরু করেছে; যেখানে অনেক দ্রুত মানসম্মতভাবে টিস্যু টাইপিং করা হয়।