• মঙ্গলবার   ২৬ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১২ ১৪২৭

  • || ০৩ শাওয়াল ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
জীবন বাঁচাতে জীবিকাও সচল রাখতে হবে: কাদের ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৮৭৩ জন শনাক্ত, মৃত্যু আরও ২০ জনের র‌্যাব-৮ এর অভিযানে মাদারীপুর থেকে জেএমবি’র সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার ২৪ ঘণ্টায় ২৪ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ছাড়াল ৩০ হাজার মমতাকে সহমর্মিতা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফোন মোংলা ও পায়রা বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত মহাবিপদ সংকেত জারি সকালে, রাতের মধ্যে আসতে হবে আশ্রয় কেন্দ্রে ২ লাখ ৫ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট অনুমোদন আম্পানের আঘাতে ১০ ফুটের অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা আরও ১২৫১ করোনা রোগী শনাক্ত, মৃত্যু ২১ জনের আরও ৭ হাজার কওমি মাদ্রাসাকে প্রধানমন্ত্রীর অর্থ সহায়তা পায়রা-মংলায় ৭, চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেশে একদিনে আক্রান্ত ও মৃত্যুর নতুন রেকর্ড বরিশালে ঘণ্টায় ৪৫-৬০ কিমি. বেগে বৃষ্টি বা বজ্রবৃষ্টির আশঙ্কা সমুদ্রসীমায় অবৈধ মৎস্য আহরণ বন্ধ করতে হবে: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী পাঁচ হাজার টেকনোলজিস্ট নিয়োগের ঘোষণা স্বাস্থ্যমন্ত্রীর করোনা সংক্রমণে বাংলাদেশ কিছুটা ভালো অবস্থানে আছে: কাদের করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১৪ মৃত্যু, শনাক্ত ১২৭৩ আম্ফান : সমুদ্রবন্দরে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্ফান’, সাগরে ২ নম্বর সংকেত
৯৪

কিডনির বায়োপসি ও গ্লোমেরুলোনেফ্রাইটিস

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

কিডনির অনেক কাজের মধ্যে প্রধান কাজ রক্ত পরিশোধন করা। আর এটি সম্পন্ন হয় যে আণুবীক্ষণিক অঙ্গের মাধ্যমে, তাকে বলে ‘গ্লোমেরুলাস’। এই গ্লোমেরুলাস আসলে এক ধরনের ছাঁকনি তৈরি করে। যা রক্তে থাকা ক্ষতিকর রাসায়নিকগুলো প্রস্রাবের মাধ্যমে বের করে দিতে সহায়তা করে। সহজভাবে বললে, এ ছবি একেকটি ক্ষুদ্র রক্তনালির গুচ্ছ। মানুষের প্রতি কিডনিতে প্রায় ১০ লাখ গ্লোমেরুলাস আছে। কিন্তু বিশেষ বিশেষ রোগের কারণে এর কার্যকারিতা নষ্ট হয়ে যায়, যেমন গ্লোমেরুলোনেফ্রাইটিস। এর উপসর্গ বা লক্ষণ নানা রকম হতে পারে অথবা কখনো কখনো সাধারণ প্রস্রাব পরীক্ষায় এটি প্রথম ধরা পড়ে। উপসর্গের মধ্যে আছে—

♦   প্রস্রাবের রং পরিবর্তন, যেমন প্রস্রাবের সঙ্গে রক্ত যাওয়া বা প্রস্রাবের রং ঘোলাটে হওয়া

♦   মুখ অথবা মুখের চারপাশে পানি জমা ও ফুলে যাওয়া

♦   পা ফুলে যাওয়া

♦   খুব অল্প বয়সে রক্তচাপ বেড়ে যাওয়া।

সাধারণ প্রস্রাব পরীক্ষায় অনেক সময় রক্তকণিকা অথবা বেশি মাত্রায় প্রোটিনের উপস্থিতি ধরা পড়লেও রোগটি সম্পর্কে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা যায়।

সমস্যা হচ্ছে, এ ধরনের অসুখ সহজে ধরা পড়ে না। কিডনির বেশির ভাগ অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে গেলে উপসর্গ প্রকাশ পেতে শুরু করে। অথচ দ্রুত এই রোগ নির্ণয় করা গেলে এ রোগকে নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আনা সম্ভব। আর তা না করা গেলে কিডনি প্রতিস্থাপন করার প্রয়োজন হয়ে পড়তে পারে।

রোগটি সম্পর্কে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা গেলেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এ রোগ নিশ্চিত নির্ণয় করার একমাত্র উপায় ‘কিডনির বায়োপসি’ করা। কিডনির বায়োপসি একটি সহজ প্রক্রিয়া, যা ছোট একটি অপারেশনের মতো। প্রথমে আলট্রাসনোগ্রাফি পরীক্ষার মাধ্যমে বাঁ পাশের কিডনির নিচের সীমানা নির্ণয় করা হয়। এরপর স্থানীয়ভাবে অবচেতন করার ওষুধ বা লোকাল অ্যানেস্থেশিয়া প্রয়োগ করে স্থানটি অবশ করা হয়। তারপর একটি বিশেষ বায়োপসি নিডল বা ছোট সুইয়ের মাধ্যমে কিডনি থেকে সামান্য কিছু টিস্যু নিয়ে তা ল্যাবরেটরিতে বিশেষ মাইক্রোসকোপের নিচে পরীক্ষা করা হয়। এ পরীক্ষার রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করেই সুনির্দিষ্ট ওষুধ প্রদানের মাধ্যমে এর চিকিৎসা করা যায়। এর সঙ্গে অবশ্য রক্তের কিছু পরীক্ষা করার প্রয়োজন পড়ে। পুরো রেনাল বায়োপসি ও আনুষাঙ্গিক পরীক্ষার জন্য রোগীকে এক-দু দিন হাসপাতালে অবস্থান করতে হয়।

আগে এ ধরনের পরীক্ষা বাংলাদেশে সম্ভব না হলেও এখন অনেক হাসপাতালেই হচ্ছে। আর পরীক্ষা সহজলভ্য হওয়ায় চিকিৎসা করাও সম্ভব হচ্ছে।

স্বাস্থ্য বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর