• বুধবার   ০৮ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২৪ ১৪২৬

  • || ১৪ শা'বান ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
যারা সাহায্য চাইতে পারবে না তাদের তালিকা করতে বললেন প্রধানমন্ত্রী দেশে করোনায় আরও ৫ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত বেড়ে ১৬৪ কারাগারে বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনি ক্যাপ্টেন মাজেদ বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি ক্যাপ্টেন মাজেদ আদালতে বঙ্গবন্ধু হত্যা: আত্মস্বীকৃত খুনি ক্যাপ্টেন মাজেদ গ্রেফতার চিকিৎসকরা কেন চিকিৎসা দেবে না, এটা খুব দুঃখজনক : প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘদিন জেলখাটা আসামিদের মুক্তির নীতিমালা করার নির্দেশ রমজানে সরকারি অফিস ৯টা থেকে সাড়ে ৩টা প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়ন হলে অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে: অর্থমন্ত্রী করোনা: ৭৩ হাজার কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা প্যাকেজ ঘোষণা বেসরকারি হাসপাতাল চিকিৎসা না দিলেই ব্যবস্থা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী প্রতি উপজেলা থেকে নমুনা সংগ্রহ করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর আজ থেকে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে সেনাবাহিনী মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে সমালোচনা করছে বিএনপি : কাদের দেশে আক্রান্তদের মধ্যে এ পর্যন্ত ২৬ জন সুস্থ : স্বাস্থ্যমন্ত্রী সেনাবাহিনী কতদিন মাঠে থাকবে সরকার বিবেচনা করবে: সেনাপ্রধান ঘরে বসে পড়াশোনা করতে হবে, শিক্ষার্থীদের প্রধানমন্ত্রী করোনায় খাদ্য ঘাটতি হবে না : কৃষিমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে বক্তব্য রাখ‌ছেন প্রধানমন্ত্রী আজ সকালে ৬৪ জেলার কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর কনফারেন্স
৯৭

কিছু শিশু করোনায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ছে: নতুন গবেষণা

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১৯ মার্চ ২০২০  

মারাত্মক ছোঁয়াচে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে শুরু করার পর থেকেই অজস্র প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে জনমানসে। নানা বিষয় নিয়ে নানারকম দ্বন্দ্বে রয়েছে মানুষ। কী থেকে ভাইরাস ছড়াচ্ছে, কীভাবে অসুখ বাড়ছে, কাদের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি—এই সব নানা রকম বিষয়ই আলোচিত হচ্ছে। এর মধ্যেই একটা গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন অনেকেরই মনে আসছে, শিশুদের কি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কম? এমন প্রশ্ন ওঠার বা এমন সম্ভাবনা মনে আসার কিছু কারণও আছে।

গত বছরের শেষর দিকে চীনের উহান থেকে উৎপন্ন  নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণের জেরে কোভিড ১৯ রোগের কারণে এরই মধ্যেই দুই লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। মারা গেছে ৮ হাজারেরও বেশি। কিন্তু যে কোন কারণেই হোক, খুব কম সংখ্যায় শিশু কোভিড ১৯-এ আক্রান্ত হয়েছে এবং তাদের মধ্যে মৃত্যুর সংখ্যাও খুবই কম। এই পরিসংখ্যান দেখেই বহু চিকিৎসক বলছেন, করোনাভাইরাস নিয়ে শিশুদের ঝুঁকি তুলনামূলক ভাবে কম। যদিও এ ব্যাপারে গবেষণালব্ধ বা বিজ্ঞানসম্মত কোন তথ্যপ্রমাণ এতদিন ছিল না। তবে বিস্তারিত গবেষণায় উঠে এসেছে যে, শিশুদেরও করোনায় আক্রান্তের ঝুঁকি রয়েছে। বিশেষ করে বেবি এবং প্রি-স্কুল শিশুরা এই ভাইরাসে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়তে পারে।

পেডিয়াট্রিক্স জার্নালের অনলাইন সংস্করণে প্রকাশিত এক সমীক্ষায় চীনের প্রায় দুই হাজারেরও বেশি অসুস্থ শিশুদের ওপর নজর দেওয়া হয়েছিল। অল্প বয়সী শিশুরা কিভাবে করোনাভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয় তার একটি পরিষ্কার চিত্র জানতেই এই সমীক্ষাটি চালানো হয়। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে, স্কুল বন্ধ হওয়া, হাসপাতালের প্রস্তুতি এবং একটি চূড়ান্ত চিকিৎসা এবং ভ্যাকসিন আবিষ্কারের মতো বিষয়গুলোতে এই গবেষণা কাজে লাগতে পারে।

গবেষকরা ৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চীনা রোগ-নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ সেন্টারগুলিতে রিপোর্ট করা হয়েছিল এমন ১৮ বছরের কম বয়সী শিশুদের দুই হাজার ১৪৩টি সংক্রমণ বিশ্লেষণ করেছেন। এদের মধ্যে এক তৃতীয়াংশ শিশুর মাঝে পরীক্ষার মাধ্যমে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি নিশ্চিত হওয়া গেছে। বাকি শিশুদের লক্ষণ, বুকের এক্স-রে, রক্ত ​​পরীক্ষা এবং করোনাভাইরাসযুক্ত ব্যক্তিদের সংস্পর্শে শিশুটিকে আনা হয়েছিল কি-না তার ভিত্তিতে সন্দেহভাজন মামলা হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়েছিল।

এদের মধ্যে অর্ধেক শিশুর মাঝে করোনার মধ্যবর্তী লক্ষণ যেমন-জ্বর, ক্লান্তি, কাশি, বমিভাব বা ডায়রিয়া ইত্যাদি লক্ষ্য করা গেছে। সিটি স্ক্যানের মাধ্যমে এক তৃতীয়াংশের শিশুর মাঝে নিউমোনিয়া বা ফুসফুসের সমস্যা সহ অতিরিক্ত লক্ষণ দেখা গেছে। ৩৯ শতাংশ শিশু মাঝারিভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছিল, তাদের শ্বাস-প্রশ্বাসে কোনও স্পষ্ট অসুবিধা লক্ষ্য করা যায়নি এবং প্রায় ৪ শতাংশের মাঝে করোনার কোনও লক্ষণই ছিল না।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলেছে, শিশুদের করোনাভাইরাস হচ্ছে না বা হওয়ার ঝুঁকি কম—এমনটা একেবারেই বলা যায় না। এই ভাইরাসের চরিত্র যতটা বিশ্লেষণ করা হয়েছে, তাতে এমন কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ফলে শিশুরাও বড়দের মতো বা বয়স্কদের মতোই সমান মাত্রায় করোনা-ঝুঁকির মুখে। তবে যে সব বয়স্ক মানুষের শ্বাসকষ্ট বা ডায়াবেটিসের মতো অসুখ রয়েছে, তাদের জন্য ভাইরাসটি অনেক বেশি মারাত্মক। শিশুদের চট করে এই ধরনের রোগ থাকে না বলে, এক অর্থে তাদের ক্ষেত্রে এই অসুখের তীব্রতার ঝুঁকি কম দেখা যায়।

এই মারাত্মক ভাইরাসের সংক্রমণের বিষয়ে শিশুদের বোঝানো, তাদের সতর্ক করা এবং তাদের মধ্যে সচেতনতা আনা জরুরি। তারা বারবার চোখে-মুখে হাত দেবে, বাইরের জিনিস স্পর্শ করবে। তাদের সহজে শান্ত করা যাবে না, কারণ সেটাই শিশুর স্বাভাবিক প্রকৃতি। চঞ্চলতার কারণে তাদের বারবার হাত ধোয়ানো বা স্যানিটাইজ করানোও কঠিন। তাই সেদিক থেকে বিচার করলে, শিশুদের সহজে সংক্রামিত হওয়ার ঝুঁকি বড়দের চেয়ে বেশিই বলা চলে।

তার পরেও কেন এত কম শিশু আক্রান্ত, তার কিছু ব্যাখ্যাও দিয়েছেন চিকিৎকরা। যেমন হংকংয়ের এক চিকিৎসক ও বিজ্ঞানী জানিয়েছেন, এই অসুখ প্রথম ছড়িয়েছিল চীনের যে বাজার থেকে, সেখানে শিশুরা প্রায় যায়ই না। ফলে একদম প্রথমে যাদের মধ্যে রোগ ছড়াতে শুরু করে, তাদের মধ্যে কোনও শিশু ছিল না।

তবে সম্ভাবনা ছিল তাদের থেকে পরে শিশুদের সংক্রামিত হওয়ার। কিন্তু সেটা ততটা বেশি হয়নি তার কারণ হয়তো নভেল করোনাভাইরাস রোখার জন্য শিশুদের শরীরে প্রতিরোধ-ক্ষমতা বেশি থাকলেও থাকতে পারে। আবার অভিবাবকদের সচেতনাও এক্ষেত্রে অনেকাংশে ভুমিকা রেখেছে বলে মনে করার যতেষ্ট কারণ রয়েছে। এসব কারণে করোনা-আক্রান্ত শিশুদের সংখ্যা খুবই কম। চীনে আক্রান্তদের মধ্যে শিশুদের সংখ্যা (যাদের বয়স ৯ বছর বা তারও কম) ১ শতাংশেরও কম। ৯ বছর বা তার কম বয়সীদের মধ্যে কেউ সংক্রমণের জন্য মারা গিয়েছে এমনটাও শোনা যায়নি।

কোন শিশু যদি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়, তা সে যত মৃদু সংক্রমণই হোক না কেন, তাদের মাধ্যমে ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়ানোর প্রভূত আশঙ্কা থাকে অনেক বেশি। কারণ শিশুরা এক জায়গায় চুপচাপ বসে থাকে না। তাদের হাঁচি কাশি নিয়ে সতর্কতা ও বোধ স্বাভাবিক ভাবেই কম। এক জায়গায় অনেক শিশু জড়ো হয়ে খেলাধুলোও করে। ফলে, শিশুদের ঝুঁকি কম ভেবে বা শিশুদের থেকে সংক্রমণের ঝুঁকি কম ভেবে নিশ্চিন্ত হওয়ার কোনও কারণ নেই বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

ঘরে বাচ্চা থাকলে নির্দিষ্ট সময় অন্তর তার হাত-মুখ ধোয়ানো জরুরি। যতটা সম্ভব কম বাইরে বেরোলেই ভাল। সব জায়গায় হাত না দেওয়ার ব্যাপারে শিশুদের সতর্ক করতে হবে। আপাতত এই ধরনের সতর্কতাই যথেষ্ট বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা। শিশুদের নিয়ে আলাদা করে অতিরিক্ত কোনও আশঙ্কা ছড়ানোও উচিত নয়।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর