বৃহস্পতিবার   ২২ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৬ ১৪২৬   ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
রিফাত হত্যায় পুলিশ প্রতিবেদন কাল শরীরে ট্যাটু আঁকায় ক্যানসারের ঝুঁকি বাকেরগঞ্জে একুশে আগস্ট উপলক্ষে শোক র‍্যালী বাবুগঞ্জে একুশে আগষ্ট স্মরনে র‌্যালী ও আলোচনা সভা ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাকারীদের ফাঁসির দাবিতে গৌরনদীতে শোকর‌্যালি বাকেরগঞ্জে ৮৯ শতাংশ সরকারি খাস জমির অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতে চেয়েছিল: আ ক ম মোজাম্মেল হক ২০২১ সাল থেকে কারিগরী শিক্ষা বাধ্যতামূলক হচ্ছে পেঁপেঁ পাতার রস খেয়ে ডেঙ্গু জ্বরে সুস্থ্য হয়েছেন সাত জন বানারীপাড়া ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্বরনে আলোচনা সভা ২১শে আগষ্ট গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে মেহেন্দিগঞ্জে আলোচনা সভা স্বাস্থ্যশিক্ষা তৃণমূলে নিতে মন্ত্রীকে দুদকের চিঠি ‘গার্লস প্রায়োরিটি’ গ্রুপের এডমিন তাসনুভা কারাগারে আবার মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে টেলিফোন শিল্প সংস্থা-মোস্তফা জব্বার গ্রেনেড হামলার দায় খালেদা জিয়া এড়াতে পারেন না: প্রধানমন্ত্রী অর্থনৈতিক বিকাশে প্রধান বাধা দুর্নীতি: দুদক চেয়ারম্যান বাপ্পির ‘ডেঞ্জার জোন’ আসছে দুর্গাপূজায় গ্রেনেড হামলায় নিহত সেন্টুর কবর জিয়ারত ভবনে প্রবেশে বাধা: দণ্ডবিধির আইন প্রয়োগ করবে ডিএনসিসি সঙ্গী যখন হাত ধরে, বুঝে নিন সম্পর্কের গভীরতা
৪৭

‘কাশ্মীরি গার্ল’ খোঁজা ‘মানসিক অসুস্থতা’, নিন্দার ঝড়

প্রকাশিত: ৯ আগস্ট ২০১৯  

 

 

  

ভারতশাসিত কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর অঞ্চলটির মেয়েদের বিয়ে করার জন্য বিজেপির এক উগ্র বিধায়কের আহ্বান এবং এর পরিপ্রেক্ষিতে গুগলে ‘কাশ্মীরি গার্ল’ খোঁজার যে ট্রেন্ড দেখা গেছে, সেটাকে ‘ধর্ষকামী’ ও ‘মানসিক অসুস্থতা’র নজির বলে মন্তব্য করেছেন বিভিন্ন অঙ্গনের বিশিষ্টজনেরা। তারা বলছেন, এটা নারী অবমাননার নির্লজ্জ উদাহরণ। এ নিয়ে নিন্দা-সমালোচনার ঝড় উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

ভারতজুড়ে যৌন হয়রানির শিকার নারীদের মুখ খোলার টুইটারভিত্তিক প্লাটফর্ম ‘#ইন্ডিয়ামিটু’র সমন্বয়ক ও সাংবাদিক ঋতুপর্ণা চ্যাটার্জি বিষয়টিকে সরাসরি ‘ধর্ষকামী মানসিকতা’র প্রকাশ বলে অভিহিত করেছেন। ক্ষুব্ধ ঋতুপর্ণা বলেন, ‘এটা একেবারে ধর্ষকামী! শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে পুরুষের যুদ্ধক্ষেত্রে টার্গেট হয়েছে নারীদেহ। কাশ্মীরি মেয়েদের নিয়ে (বিজেপি বিধায়কের) সবশেষ মন্তব্য সেই বিষয়টির প্রমাণ।’

বিজেপি বিধায়কের আহ্বান এবং অনলাইনে ‘কাশ্মীরি গার্ল’ লিখে খোঁজার বিষয়টিকে সরাসরি ‘নারী অবমাননা’ বলছেন নয়াদিল্লির সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও নারী অধিকার নেত্রী মিহিরা সুদ। তিনি বলেন, ‘কাশ্মীরের নারীরা যুদ্ধের গণিমতের মাল নন। তারাও অন্যদের মতো মানুষ, মতামতের অধিকার তাদেরও আছে।’

কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদায় সংবিধানে রাখা ৩৭০ অনুচ্ছেদ সম্প্রতি বাতিল করে দেয় নরেন্দ্র মোদীর বিজেপি সরকার। তবে এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের আগে নাটকীয় কায়দায় অঞ্চলটিজুড়ে সামরিক ও আধা সামরিক বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য মোতায়েন করা হয়। বন্দি করা হয় সাবেক দুই মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি, ওমর আব্দুল্লাহসহ মূলধারা রাজনৈতিক দলগুলোর অনেক নেতাকে। ইন্টারনেট, ক্যাবল নেটওয়ার্কসহ যাবতীয় সব যোগাযোগও বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়। কারফিউ জারি করে রাস্তায় রাস্তায় সাঁজোয়া যান নিয়ে অবস্থান নেয় সশস্ত্র বাহিনী।কাশ্মীরে ইন্টারনেট, ক্যাবল নেটওয়ার্কসহ যাবতীয় সব যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছে। ছবি: সংগৃহীতসংবাদমাধ্যম বলছে, ব্রিটিশরা চলে যাওয়ার সময় উপমহাদেশ ভাগ হয়ে গেলে তখন কাশ্মীরের শাসকরা বিশেষ শর্তে ভারতে যোগ দেন। সেই শর্তটিই ৩৭০ অনুচ্ছেদ আকারে সংবিধানে সংরক্ষিত ছিল। এই অনুচ্ছেদের আওতায় কাশ্মীর আলাদা সংবিধান ও পতাকার স্বাধীনতা ভোগ করতো। এমনকি সেখানে সরকারি চাকরি, জমি কেনা এবং ব্যবসা করার সুযোগটিও ছিল কেবল কাশ্মীরিদের জন্যই। 

তবে এ অনুচ্ছেদ বাতিল হওয়ায় বেশিরভাগ ভারতীয়র নজর যায় কাশ্মীরের মেয়েদের দিকে। বিশেষ মর্যাদাপ্রাপ্ত কাশ্মীরের মেয়েরা আগে রাজ্যের বাইরে বিয়ে করতে পারলেও বাবার বাড়ির সম্পত্তির অধিকার থেকে বঞ্চিত হতেন। সেজন্য নিষেধাজ্ঞা না থাকলেও কাশ্মীরে বিয়ে করতে যেতেন না ভারতীয় ছেলেরা। কিন্তু এখন রাজ্যের বাইরে বিয়ে হলেও কাশ্মীরি মেয়েরা বাবার সূত্রে সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হবেন।

অনুচ্ছেদটি বাতিল হওয়ার পর উত্তর প্রদেশের মোজফফরনগরের বিজেপির বিধায়ক বিক্রম সাইনি বলেন, ‘এবার আমাদের দলের কর্মীরা সুন্দরী কাশ্মীরি নারীদের বিয়ে করতে পারবেন... যারা অবিবাহিত তারা এবার কাশ্মীরে বিয়ে করতে পারবেন।... ওখানকার মেয়েদের বিয়ে করুন। তিনি হিন্দু বা মুসলমান যেই হোন। এ নিয়ে সারাদেশের আনন্দ করা উচিত।’

বিজেপির এ উগ্র মানসিকতার বিধায়কের বক্তব্যর পরই ভারতজুড়ে যেন ‘কাশ্মীরি গার্ল’ খোঁজার ‘মানসিক রোগ’ ছড়িয়ে পড়ে। কাশ্মীরের মেয়েদের বিয়ে করার পরিকল্পনা, হানিমুন ও ভিডিওতে সয়লাব হয়ে যায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম। এমনিক গুগল ট্রেন্ডে দেখা যায়, সার্চে সবার ওপরে উঠে গেছে কাশ্মীরি মেয়ে। এরপরই দেখা গেছে ‘ম্যারি কাশ্মীরি গার্ল’ সার্চ করতে।

বিষয়টিতে চরম ক্ষুব্ধ অনেক নারী ও মানবাধিকার কর্মী বলেন, ‘স্মার্টফোন হাতে যারা এই ধরনের গুগল সার্চ করছেন, তারা আসলে হরিণের চামড়া গায়ে দেওয়া নেকড়ে।’

এই বিভাগের আরো খবর