রোববার   ২০ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৫ ১৪২৬   ২০ সফর ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
ফাদার রিগনের মৃত্যুবার্ষিকী আজ বিকেলে যুবলীগ নেতাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক অখ্যাত মায়োর্কার মাঠে রিয়ালের প্রথম হার টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ মাদক ব্যবসায়ী নিহত শ্রমিকের স্বার্থে কাজ করছে সরকার: শ্রম প্রতিমন্ত্রী যুবলীগ থেকে বহিষ্কার কাউন্সিলর রাজীব টেকনাফে পৃথক অভিযানে ইয়াবাসহ ৩ রোহিঙ্গা আটক রাজীবের মোহাম্মদপুরের বাসায় অভিযান পরিচালনা করছে র‌্যাব অস্ত্র ও মাদকসহ রাজীবকে আটক করেছে র‌্যাব কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজিব গ্রেফতার আসছে ‘জলের গান’র অ্যালবাম, থাকছে বারী সিদ্দিকীর গান বছর শেষ হলেই বাতিল হচ্ছে ২ হাজার রুপির নোট ঢাকায় আসছেন নিউইয়র্ক সিটির ৫ সিনেটর বাকেরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত দাইয়ুস জান্নাতে যাবে না ড্রাগনের রক্ত বয়ে চলেছে যে গাছ! বালিশকাণ্ডের মতো কলঙ্কজনক কাজ যেন না হয় :পরিকল্পনামন্ত্রী দলে অনুপ্রবেশকারীদের জায়গা দেওয়া হবে না: নাসিম দোয়া পাওয়ার জন্য রাজনীতি করি : শামীম ওসমান আর্থিক সংকটে দুদিন বন্ধ জাতিসংঘ
৩২

কারখানায় ডে-কেয়ার সেন্টার নিশ্চিত করতে শ্রম প্রতিমন্ত্রীর নির্দেশ

প্রকাশিত: ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান প্রত্যেক কারখানায় ডে-কেয়ার সেন্টার এবং মাতৃদুগ্ধ কর্ণার আছে কি না তা নিশ্চিত করতে শ্রম পরিদর্শকদের নির্দেশ দিয়েছেন ।

মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সিরডাপ মিলায়তনে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় এবং ইউনিসেফ আয়োজিত শ্রম পরিদর্শকদের জন্য “মাদার্স এ্যাট ওয়ার্ক” শীর্ষক ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ নির্দেশ দেন।

বেগম মন্নুজান সুফিয়ান বলেন, বাংলাদেশ শ্রম আইন অনুযায়ী যে সকল কারখানায় ৪০ জনের বেশি মহিলা কর্মী কাজ করেন সেখানে ডে কেয়ার সেন্টার এবং মাতৃদুগ্ধ কর্ণার থাকা বাধ্যতামূলক। কারখানায় ডে-কেয়ার সেন্টার এবং মাতৃদুগ্ধ কেন্দ্র স্থাপন দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগ। যদি ডে- কেয়ার সেন্টারের অভাবে কোন দক্ষ কর্মী চাকুরী ছেড়ে যায় তাহলে তা শিল্পের জন্য ক্ষতি।

তিনি বলেন, দেশকে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করতে দক্ষ জনশক্তি তৈরীর বিকল্প নেই। বেশি বেশি প্রশিক্ষণ শ্রম পরিদর্শকদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গার্মেন্টস শিল্পের অবদানের কথা উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০২২ সালের মধ্যে ৫০ বিলিয়ন ডলার মূল্যের পোশাক রপ্তানীর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে সরকার। একই সাথে সরকার কারখানার শোভন কর্ম পরিবেশ নিশ্চিতে বদ্ধপরিকর।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বর্তমানে ৪৯০৭টি কারখানায় ডে-কেয়ার সেন্টার এবং মাতৃদুগ্ধ কর্ণার স্থাপন করা হয়েছে। শ্রম পরিদর্শকদের চেকলিস্টে ১০০টি প্রশ্নের মধ্যে ১০টি প্রশ্নই রয়েছে মাতৃত্ব নিয়ে। কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর মাতৃত্ব কল্যাণ সুরক্ষায় নানামূখি কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের মহাপরিদর্শক শিবনাথ রায় এর সভাপতিত্বে মন্ত্রণালয়ের সচিব কে এম আলী আজম, অতিরিক্ত সচিব ড. মোল্লা জালাল উদ্দিন এবং ইউনিসেফ বাংলাদেশ এর কান্ট্রি ডিরেক্টর তোমো হোজুমি বক্তৃতা করেন। ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের ২৫ জন শ্রম পরিদর্শক অংশ গ্রহণ করেন।

এই বিভাগের আরো খবর