সোমবার   ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৫ ১৪২৬   ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বিরাজ করছে : নাসিম ব্যাংকের জঙ্গি অর্থায়ন নজরদারিতে রয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ৪০০ মেট্রিক টন মধু রফতানির অর্ডার পেয়েছে বাংলাদেশ : কৃষিমন্ত্রী নয় বছরে সাড়ে ৯৭ হাজার কর্মকর্তা নিয়োগ : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী দেশে মোবাইল টাওয়ার রেডিয়েশনের মাত্রা ক্ষতিকর নয় : বিটিআরসি সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ২০ বছর পর আজ ঢাকায় আসছেন নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী খালেদার প্যারোলে মুক্তির কোনো আবেদন পাইনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উহান ফেরত শিক্ষার্থীরা নজরদারিতেই থাকবেন : আইইডিসিআর রোহিঙ্গা ইস্যুতে ইন্দোনেশিয়ার সহায়তা চাইলেন ড. মোমেন ইউএনও’দের মাধ্যমে রাজাকারের তালিকা করা হবে : মোজাম্মেল হক মানবপাচারে অভিযুক্ত এমপির বিষয়ে দুদককে তদন্তের আহ্বান কাদেরের হত্যা মামলায় ৯ জনের যাবজ্জীবন বিশ্বকাপজয়ী ৬ ক্রিকেটারকে নিয়ে বিসিবি একাদশ ঘোষণা মশা মারার পর্যাপ্ত ঔষধ মজুত আছে : স্থানীয় সরকারমন্ত্রী রহমত আলীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট রহমত আলী আর নেই নিঃস্বার্থভাবে জনগণের কাজ করুন, নেতাকর্মীদের শেখ হাসিনা কে ভোট দিল কে দিল না তা বিবেচনা করে না আ. লীগ : প্রধানমন্ত্রী আ.লীগ উন্নয়নে বিশ্বাসী: প্রধানমন্ত্রী
৫১

এডিস মশার লার্ভা ধ্বংসের নির্দেশনা সব মন্ত্রণালয়ে

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২২ আগস্ট ২০১৯  

এ মুহূর্তে রাজধানীসহ সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে ডেঙ্গুর ভয়াবহতা। আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা প্রায় ৬০ হাজারে পৌঁছেছে। সরকারি হিসাবেই মৃত্যুর সংখ্যা ৪৭-এ দাঁড়িয়েছে। তবে বেসরকারি হিসেবে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা আরও বেশি। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে ডেঙ্গুর বাহক এডিস মশা নিধনে সরকারি সব দফতরে পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম পরিচালনার নির্দেশনা দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে মশার লার্ভা জন্মানোর উপযোগী সব স্থান ধ্বংস এবং পরিত্যক্ত বস্তু অপসারণ করতে সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগে চিঠি দিয়েছে স্থানীয় সরকার বিভাগ। পাশাপাশি এ বিষয়ে জনসচেতনতা বাড়াতে সব সিটি মেয়র, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, উপজেলা চেয়ারম্যান ও পৌরসভার মেয়রদের চিঠি দেয়া হয়েছে।

বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেন, ‘সরকারি-বেসরকারি সব অবকাঠামোতে জমাকৃত পানিতে এডিস মশার প্রজনন হয়ে থাকে।

তাই শুধু বেসরকারি ভবনের মালিকদের সচেতন হলেই হবে না। সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে যারা যেখানে দায়িত্ব পালন করেন তাদের সবাইকেই সচেতন হতে হবে। এ লক্ষ্য সামনে রেখেই এ ধরনের চিঠি বা পরিপত্র জারি করা হয়েছে।’

মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিবদের কাছে দেয়া স্থানীয় সরকার বিভাগের চিঠিতে বলা হয়- প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ডেঙ্গুসহ মশাবাহিত সব রোগ প্রতিরোধকল্পে ২৫ জুলাই থেকে দেশব্যাপী মশক নিধন ও পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম চলমান রয়েছে। এর ধারাবাহিকতায় বিগত দিনগুলোতে মশার বিস্তাররোধ ও উৎপত্তিস্থল ধবংসের জন্য এ মন্ত্রণালয় থেকে নানা ধরনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

এমতাবস্থায় দেশব্যাপী ‘মশক নিধন ও পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম’ এর সফল বাস্তবায়ন ও কাঙ্ক্ষিত সুফল পেতে আপনার মন্ত্রণালয় ও বিভাগের অধীন সব দফতর/সংস্থা/কার্যালয়ে পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিচালনার পাশাপাশি মশার লার্ভা জন্মানোর উপযোগী সব উৎস ধ্বংস করা এবং পরিত্যক্ত বস্তু অপসারণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ করা হল।

এর দু’দিন আগে ১৮ আগস্ট মশক নিধন ও পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম বিষয়ে জনসচেতনতামূলক প্রচার ব্যাপকভাবে অব্যাহত রাখতে সব সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, উপজেলা চেয়ারম্যান ও পৌরসভার মেয়রদের চিঠি দেয় স্থানীয় সরকার বিভাগ। ওই চিঠিতে বলা হয়- ‘ডেঙ্গুসহ মশাবাহিত সব রোগ প্রতিরোধকল্পে দেশব্যাপী মশক নিধন ও পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

উক্ত কার্যক্রমের সফল বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মশার বংশ বিস্তার রোধ ও পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করার জন্য জনসচেতনতামূলক প্রচার ব্যাপকভাবে অব্যাহত রাখার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সানুগ্রহ অনুশাসন প্রদান করেছেন। এমতাবস্থায় স্থানীয় সরকার বিভাগের আওতাধীন সকল দফতর/সংস্থা ও স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহের উদ্যোগে সচেতনতামূলক পোস্টার, লিফলেট, টিভিসি ইত্যাদি মিডিয়া উপকরণ ব্যাপকভাবে প্রচারের পাশাপাশি উপযুক্ত উদ্বুদ্ধকরণ কার্যক্রমের মাধ্যমে মশার বংশ বিস্তার রোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ করা হল।’

বিশেষ করে সরকারি দফতরগুলোতে এর সুফল হতাশাজনক। বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে তদারকি করা হচ্ছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সব মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় সরকারের প্রতিষ্ঠানগুলো চিঠি দেয়া হয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর