• শুক্রবার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ৯ ১৪২৭

  • || ০৭ সফর ১৪৪২

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
করোনায় আরও ২৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫৪০ মেহেরপুরে ‘আল্লাহর দল’র সক্রিয় সদস্য আটক করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৬৬৬ করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৮, শনাক্ত ১৫৫৭ মসজিদে বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৪ ধর্ষণ মামলায় ভিপি নুর গ্রেফতার আইসিটি মামলায় আলাউদ্দিন জিহাদী এক দিনের রিমান্ডে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৪০, শনাক্ত ১৭০৫ গাড়িচালক মালেক ১৪ দিনের রিমান্ডে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৬, শনাক্ত ১৫৪৪ গভীর সমুদ্র থেকে ৫ লাখ পিস ইয়াবা উদ্ধার, আটক ৭ ব্যাংকটা যেন ভালোভাবে চলে সেদিকে দৃষ্টি দিবেন: প্রধানমন্ত্রী নারায়ণগঞ্জের মসজিদে বিস্ফোরণে মৃত্যু বেড়ে ৩৩ আহমদ শফী কওমি শিক্ষার আধুনিকায়নে ভূমিকা রেখেছেন: প্রধানমন্ত্রী না.গঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩২ করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৬, শনাক্ত ১৫৯৩ পেঁয়াজ আমদানিতে ৫ শতাংশ শুল্ক কমানোর চিন্তা: অর্থমন্ত্রী সরকার ওজোনস্তর রক্ষায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে: পরিবেশ মন্ত্রী এক মাসের মধ্যে পেঁয়াজের দাম স্বাভাবিক হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী শামুকের পাশাপাশি ঝিনুকও সংরক্ষণ করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
৪৩

এক ‘ন’তে ধরা হাজার কোটি টাকার প্রতারণা

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১৩ আগস্ট ২০২০  

দেশ-বিদেশের ব্যাংক লোন কিংবা সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকরি, সবই দক্ষভাবে করিয়ে দিতে পারদর্শী তিনি। বড় প্রতিষ্ঠানের নামে মোটা অংকের ফান্ড লোন কিংবা বিদেশি বিনিয়োগ আনতে বিশ্বের ১৫টি দেশের ৩২টি ব্যাংকের স্বীকৃত ১১৫টি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে তার রয়েছে চুক্তি। দেশে বেকারত্ব দূর ও উদ্যোক্তা তৈরি করতে তিনি দিচ্ছেন স্বল্প সুদে লোন করিয়ে দেয়ার শতভাগ নিশ্চয়তা। সর্বনিম্ন ২০ লাখ থেকে ১ হাজার কোটি টাকা পর্যন্ত লোন করিয়ে দেয়ার ঘোষণা দিয়ে তিনি খুলেছেন ইন্টারন্যাশনাল ব্যাংক লোন সার্ভিস সেন্টার (আইবিএল) নামের একটি প্রতিষ্ঠান।

তবে সমস্যা হলো ঘোষিত এই বিষয়গুলো সবই ভুয়া। সাধারণ মানুষ ও ব্যবসায়ীদের বোকা বানিয়ে লোন প্রসেসিং করার নামে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অন্যতম এই কারিগর হলেন তাড়াশ উপজেলার রাব্বি শাকিল ওরফে ডি.জে শাকিল (৩২)। সিরাজগঞ্জের তাড়াশ পৌরসভার গেটের পাশেই তার সুদৃশ্য অফিস। সেখান থেকেই প্রতারণার নেটওয়ার্ক চালান সারাদেশ জুড়ে।

অনুসন্ধান করে পাওয়া তথ্য অনুসারে দেশের আলোচিত সাহেদের চেয়েও ভয়ংকর প্রতারক এই ডি.জে শাকিল। তার বাড়ি সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলায় খাঁ পাড়ায়। তার বাবা কাজী গোলাম মোস্তফা।

বুধবার রাতে বগুড়া পুলিশের সাইবার ক্রাইম ইউনিটের কাছে দুই সহযোগীসহ শাকিল গ্রেফতার হন। তারা হলেন- প্রতারণার জন্য তৈরি করা তার প্রতিষ্ঠানে আইটি এক্সপার্ট একই উপজেলার কুসুন্দি গ্রামের হুমায়ন কবির (২৮), ম্যানেজার নওগাঁর মান্দার গাড়িক্ষেত্র গ্রামের হারুনর রশিদ সাইফুল (২৬)।

বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা বলেন, বগুড়ার ভুক্তভোগী দুই যুবকের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বগুড়া সাইবার ক্রাইম ইউনিটের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর ইমরান মাহমুদ তুহিনের নেতৃত্বে একটি দল অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে। তাদের কাছে থেকে উদ্ধার করা হয় বিভিন্ন ব্যাংকের গ্রাহকদের স্বাক্ষরিত টাকার অংক ছাড়া চেকের পাতা ১০টি, ৫শ কোটি টাকার পূবালী ব্যাংকের টাঙ্গাইল শাখার তাসবির এন্টারপ্রাইজের নামে ১টি চেক ও ৫ কোটি টাকার আরেকটি চেক ওই ব্যাংকের একই শাখার জাবের এন্টারপ্রাইজের নামে। এছাড়া একই শাখার ২শ কোটি টাকার আরও একটি চেক ইস্যু করা হয়েছে শিহাব উদ্দিন আহম্মেদের নামে। মোটা অংকের ব্যাংক লোনের আশায় তারিখ ছাড়া জামানত হিসেবে এই চেকগুলো প্রদান করেছেন পূবালী ব্যাংক টাঙ্গাইল প্রধান শাখার গ্রাহক (এসি নং : ০৪৭০৯০১০৪৪৬০৬) রাজলাক্সামি ট্রেডিং কর্পোরেশনের মালিক তাপস কুমার পাল। বাকি ১ কোটি ৭২ লাখ ১০ হাজার টাকার চেকগুলো সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন ব্যাংকের রয়েছে।

বগুড়া ডিবি পুলিশের পরিদর্শক আসলাম আলী বলেন, অভিযানকালে ডি.জে শাকিলের সুসজ্জিত অফিস কক্ষ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নামে ১২০১ কোটি ৭২ লাখ ১০ হাজার টাকার ভুয়া চেক, ৫০টির বেশি টাকার অংক ছাড়া স্বাক্ষর করা চেক, সামরিক বাহিনীসহ সরকারি একাধিক প্রতিষ্ঠানের ভুয়া নিয়োগপত্র ও চুক্তিনামা, জাল স্ট্যাম্প ও ড্যামি পেপার, প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন মোবাইল কোম্পানির ৬০টি সিম কার্ড, তাদের নিজস্ব পরিচালিত ২২টি অনলাইন নিউজ পোর্টালের তথ্য এবং আইডি কার্ড, দেশের সুনামধন্য বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার ভুয়া নিয়োগপত্র ও পরিচয়পত্র, প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত ১২টি ফেসবুক আইডি, ৩৫টি ফেসবুক পেইজ, সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে সিলসহ চিঠি তৈরির ফরমেটসহ ২ টেরাবাইটের হার্ডডিস্ক, প্রিন্টারসহ ৩টি সিপিইউ ও ৩টি মনিটর এবং পূবালী ব্যাংকের সচল ৭টি ব্যাংক একাউন্ট।

অভিযোগ থেকে জানা যায়, আইবিএল ইন্টারন্যাশনাল লোন সার্ভিস থেকে চাকরি বার্তায় একটি বিজ্ঞাপন দেখে আকৃষ্ট হন বগুড়ার আমায়রা এগ্রো ফার্মের সত্ত্বাধিকারী আমানত উল্লাহ তারেক ও অভি এগ্রো ফার্মের সত্ত্বাধিকারী আশিক দৌলাতানা। তারা ডি.জে.শাকিলের সঙ্গে যোগাযোগ করলে মোটা অংকের লোন করে দেয়ার কথা বলে প্রথম দফাতেই কমিশন বাবদ নগদ ১০ লাখ টাকা নেন তিনি। এরপর তাদেরকে জানানো হয়, যুব উন্নয়ন অধিদফতর থেকে তাদের নামে দুই কোটি ৫০ লাখ ও দুই কোটি টাকার পৃথক দুইটি লোন বরাদ্দ করা হয়েছে। এসব কথা বলে তাদের কাছে থেকে সর্বমোট সর্বমোট ১৪ লাখ ৩৫ হাজার টাকা আদায় করেন। এরপর শাকিল তার নিজের অফিসের ইমেইল থেকে তারেকের ব্যক্তিগত জি-মেইলে ‘গনপ্রজাতন্ত্রী’ বাংলাদেশ সরকার যুব উন্নয়ন অধিদফতর লোন শাখার হিসাব নং- ০০০০০২৬৩৬৮১০৯৭, চেক নং- ক ৮৮৩৭৩৯২২৮৩৯২ তারিখ ১১/১১/২০১৯ইং আমায়রা এগ্রো ফার্মের নামে ২,৫০,০০,০০০/-(দুই কোটি পঞ্চাশ লক্ষ টাকা) ও আশিক দৌলাতানা অভির অভি এগ্রো ফার্মের নামে একই হিসাব নম্বরের অপর একটি চেক নং ক ৮৮৩৭৩৯২২৮৫৪৬৫৬, তারিখ ১১/১১/২০১৯ইং ২,০০,০০,০০০/-(দুই কোটি টাকা) সমমূল্যের ২টি চেকের স্ক্যানকপি প্রেরণ করেন।

টাকা উত্তোলনের জন্য তারা শাকিলের কাছে চেকের মূল কপি চাইলে তারা আজ দেবে কাল দেবে বলে কালক্ষেপণ করে। বিষয়টিতে সন্দেহ হওয়ায় তারা বাংলাদেশ ব্যাংক, বগুড়া শাখায় গিয়ে চেক দুইটির প্রিন্ট কপি দেখালে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ ‘গণপ্রজাতন্ত্রী’ বানান ভুল এবং চেক দুইটি ভুয়া বলে নিশ্চিত করে। এরপর তারেক পুনরায় যুব উন্নয়ন অধিদফতর, বগুড়া শাখায় গিয়ে শাকিলের প্রদত্ত লোন স্যাংশন লেটার ও চেকের স্ক্যান কপি দেখালে যুব উন্নয়ন কর্তৃপক্ষও স্যাংশন লেটার ও চেকের স্ক্যান কপিটি ভুয়া এবং স্বাক্ষর তাদের কর্তৃপক্ষের নয় বলে নিশ্চিত করে।

এ প্রসঙ্গে আমায়রা এগ্রো ফার্মের সত্ত্বাধিকারী আমানত উল্লাহ তারেক বলেন, শাকিল একজন প্রতারক। আমাদের সঙ্গে সে প্রতারণা করেছে। তার বিচার চাই।

সরকারি সিল মোহর ও প্যাড ব্যবহার করে তৈরি করা বেশ কিছু ভুয়া নিয়োগপত্র উদ্ধার করা হয় ডি.জে শাকিলের অফিস থেকে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে রাজশাহীর বাঘমারার বাবুলুর রহমানের নামে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের তৈরি মিটার রিডার কাম ম্যাসেনজারের ভুয়া নিয়োগপত্র, নাটোরের গুরুদাসপুরের আরিফুল ইসলামের নামে বাংলাদেশ রাজস্ব বোর্ডের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা পদের ভুয়া নিয়োগপত্র, বগুড়ার হাজরাদীঘি তেলধাপ গ্রামের নাজেম উদ্দিনের নামে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দফতরী কাম প্রহরীর ভুয়া নিয়োগ পত্র ও রংপুরের বদরগঞ্জের দক্ষিণ বাওচন্ডি গ্রামের চাঁদ বাবুর নামে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অফিস সহায়ক পদের ভুয়া নিয়োগপত্র। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শাকিল জানিয়েছে একেকটি ভুয়া নিয়োগে সে ৫ থেকে ৩০ লাখ টাকা পর্যন্ত আদায় করেছে।

অভিযুক্ত ডি.জে শাকিল প্রতারণা প্রসঙ্গে বলেন, আমি প্রতারণা করে নেয়া এসব টাকা বিভিন্ন ব্যবসা বাণিজ্যের কাজে লাগিয়েছি। এছাড়া ফূর্তি করেও অনেক টাকা নষ্ট করেছি। এখন আমার ভুল বুঝতে পারছি।

অপরাধ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর