বৃহস্পতিবার   ২১ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৭ ১৪২৬   ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সশস্ত্র বাহিনীকে গড়ে তোলা হবে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে সশস্ত্র বাহিনীকে কাজ করার আহ্বান আজ বরিশালে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত থাকবে যুদ্ধ জাহাজ সড়ক পরিবহন আইনের অসঙ্গতি দূর করা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ‘বিএনপি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুজব সৃষ্টি করছে’- কাদের অনার্স ২য় বর্ষের ২৫ নভেম্বরের পরীক্ষা স্থগিত কোন অপপ্রচারে কান না দিতে জনগণের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান ‘গোলাপি’ যাত্রা রাঙ্গাতে কাল মাঠে নামছে বাংলাদেশ সারাবিশ্বে বাংলাদেশ এখন সম্মানের দেশ: প্রধানমন্ত্রী আগৈলঝাড়ায় প্রতিবন্ধি শিশু ধর্ষণ, এক ঘন্টার মধ্যে ধর্ষক গ্রেফতার সশস্ত্র বাহিনী দিবসের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী আজ সন্ধ্যায় আ. লীগের অভ্যর্থনা উপকমিটির সভা ইউনেস্কোর সাধারণ অধিবেশনে অংশ নিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বরিশালে পৃথক অভিযানে ২৫ মণ জাটকা জব্দ শিখা অনির্বাণে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা দুদকের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ সশস্ত্র বাহিনী নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করবেন- প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আইভোরি কোস্টের রাষ্ট্রদূতের বিদায়ী সাক্ষাৎ সশস্ত্র বাহিনী জাতির গর্বের প্রতীক : রাষ্ট্রপতি আজ বিশ্ব টেলিভিশন দিবস
৪৪৪

উপকূলে বাংলাদেশের হাতে থাকবে রাডারের নিয়ন্ত্রণ

প্রকাশিত: ১৩ অক্টোবর ২০১৯  

 

বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় রাডার স্থাপন নিয়ে বিভিন্ন মহল থেকে মিথ্যা ও বিভ্রান্তিমূলক তথ্য ছড়ানো হয়েছে। কিছু মানুষ এতে বিভ্রান্তও হয়েছে। এর কারণ হলো বেশিরভাগ মানুষ বাংলাদেশ-ভারত যৌথ ঘোষণাটি পড়েই দেখেনি। 

বেশিরভাগ মানুষ এই বিষয় নিয়ে অপপ্রচারমূলক লেখা এবং খবরগুলো বেশি দেখেছে। এর কারণ হলো বাংলাদেশ বিরোধী একটি গোষ্ঠী এবং কিছু জ্ঞানপাপীরা ষড়যন্ত্রমূলকভাবে সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্যই পরিকল্পিতভাবে এই অপপ্রচার করেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম দিয়ে সবার কাছে সুনিপুণভাবে মিথ্যা তথ্য পৌঁছে দিয়েছে।

বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় রাডার স্থাপন নিয়ে Joint Statement বা বাংলাদেশ-ভারত যৌথ ঘোষণায় কী বলা আছে? চলুন দেখে নিই :

(Both Prime Ministers welcomed the initiatives for development of closer Maritime Security Partnership, and noted the progress made in finalization of an MoU on Establishment of Coastal Surveillance Radar System in Bangladesh and encouraged both sides for early signing of the MoU.)

এর অর্থ হলো- আমরা মূলত ভারতের কাছ থেকে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় স্থাপনের জন্য রাডার কিনব এবং মজার ব্যাপার হলো আমরা ভারতের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে এই রাডারগুলো কিনব এবং স্থাপন করব। আমাদের এককালীন পুরো টাকাও দিতে হবে না। আমরা কিস্তিতে এই টাকা পরিশোধ করব। পুরো Surveillance Radar System বাংলাদেশেই বসবে এবং বাংলাদেশের হাতেই থাকবে। বাংলাদেশ নৌবাহিনী এই রাডারের মাধ্যমে আমাদের উপকূলীয় এলাকায় নজরদারি করবে।

আমরা যেমন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট তৈরি করতে ফ্রান্সের সহযোগিতা নিয়েছি এবং উৎক্ষেপণ করতে যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতা নিয়েছি কিন্তু স্যাটেলাইটের নিয়ন্ত্রণ এবং মালিকানা আমাদের হাতেই আছে। একইভাবে মেট্রো রেল তৈরি করতে জাপানের ঋণ নিচ্ছি এবং তাদের প্রযুক্তি কিনছি কিন্তু মেট্রোরেল তো আমরাই ব্যবহার করব। চীনের কাছ থেকে সাবমেরিন কিনেছি এবং সাবমেরিন পরিচালনায় চীনের সহযোগিতা নিয়েছি কিন্তু সাবমেরিনের মালিকানা এবং নিয়ন্ত্রণ বাংলাদেশেরই আছে। বাংলাদেশের নৌবাহিনী নিয়ন্ত্রণ এবং ব্যবহার করছে এই সাবমেরিনগুলো। একইভাবে ভারতের কাছ থেকে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় স্থাপনের জন্য আমরা রাডার কিনব এবং এগুলো স্থাপনে তাদের সহযোগিতা নিব।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট বা মেট্রো রেল বা চীনা সাবমেরিনের মতো বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় স্থাপিত রাডারগুলো বাংলাদেশই নিয়ন্ত্রণ করবে এবং ব্যবহার করবে। বাংলাদেশ নৌবাহিনী এই রাডারগুলো দিয়ে নজরদারির মাধ্যমে উপকূলীয় এলাকায় আমাদের নিরাপত্তা সুরক্ষার করবে।

লেখক :
অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী আরাফাত
চেয়ারম্যান, সুচিন্তা ফাউন্ডেশন

এই বিভাগের আরো খবর