বুধবার   ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৬ ১৪২৬   ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
ধর্ষকদের ধরিয়ে দিন, কঠোর ব্যবস্থা নেবো: প্রধানমন্ত্রী টাকা না থাকলে এত উন্নয়ন কাজ করছি কীভাবে : প্রধানমন্ত্রী সব ব্যথা চেপে রেখে দেশের জন্য কাজ করছি : প্রধানমন্ত্রী ট্রেনে খোলা খাবার বিক্রি ও প্লাস্টিকের কাপ নিষিদ্ধ হচ্ছে চলতি বছরে জিপিএ-৪ কার্যকর হচ্ছে মজুদ গ্যাসে চলবে ২০৩০ সাল পর্যন্ত : খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী গুজব-অপপ্রচার রোধে কাজ করছে উচ্চ পর্যায়ের কমিটি : তথ্যমন্ত্রী সব কারখানায় ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনের নির্দেশ আজ বাংলাদেশ-নেপাল পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক সরকার-জনগণের মধ্যে সম্পর্ক জোরদার করতে সাংসদের রাষ্ট্রপতির আহ্বান দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বিরাজ করছে : নাসিম ব্যাংকের জঙ্গি অর্থায়ন নজরদারিতে রয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ৪০০ মেট্রিক টন মধু রফতানির অর্ডার পেয়েছে বাংলাদেশ : কৃষিমন্ত্রী নয় বছরে সাড়ে ৯৭ হাজার কর্মকর্তা নিয়োগ : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী দেশে মোবাইল টাওয়ার রেডিয়েশনের মাত্রা ক্ষতিকর নয় : বিটিআরসি সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ২০ বছর পর আজ ঢাকায় আসছেন নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী খালেদার প্যারোলে মুক্তির কোনো আবেদন পাইনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উহান ফেরত শিক্ষার্থীরা নজরদারিতেই থাকবেন : আইইডিসিআর রোহিঙ্গা ইস্যুতে ইন্দোনেশিয়ার সহায়তা চাইলেন ড. মোমেন

সরকারি কলেজগুলোতে হয়রানি বন্ধে আসছে ই-নথি

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

 


সরকারি কলেজের শিক্ষকদের আর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দফতরে দফতরে ঘুরতে হবে না। ছুটির ফাইল অনুমোদনের জন্য মাসের পর মাস অপেক্ষাও করতে হবে না। আগামী এপ্রিল থেকে অনলাইনেই ছুটি, লিয়েন ও প্রেষণসহ সব ধরনের আবেদন জানাতে পারবেন তারা। ফাইল নিষ্পত্তিও হবে অনলাইনে। ফলে বন্ধ হবে শিক্ষকদের হয়রানি।

জানতে চাইলে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) পরিচালক (প্রশিক্ষণ) অধ্যাপক ড. প্রবীর কুমার ভট্টাচার্য্য বলেন,‘আগামী এপ্রিল থেকে সরকারি কলেজগুলোর জন্য ই-নথি চালু হচ্ছে। দেশের ৩২৭টি কলেজের বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারের প্রায় ১৫ হাজার শিক্ষককে ই-নথির আওতায় আনা হবে। পর্যায়ক্রমে নতুন সরকারি হওয়া ৩০২টি কলেজও ই-নথির আওতায় আসবে। এরপর ই-নথির আওতায় আসবে সরকারি স্কুলগুলো। ’   

মাউশি সূত্রে জানা গেছে, ই-নথি কার্যক্রম চালুর জন্য গত ১৩ জানুয়ারি থেকে কাজ শুরু করা হয়। আগামী ৩১ মার্চের মধ্যে এই কাজ শেষ করার কথা রয়েছে। এই প্রক্রিয়া শেষ হলে এপ্রিল থেকে ই-নথি কার্যক্রম শুরু হবে। এটুআই প্রকল্পের সহায়তায় এই কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

ই-নথি চালু হলে সাধারণ ছুটিসহ সব ধরনের ছুটির আবেদন করতে পারবেন শিক্ষকরা। এছাড়া প্রেষণ ও লিয়েনের জন্য আবেদন, বর্ধিত ইনক্রিমেন্টের জন্যও আবেদন করা যাবে ঘরে বসেই। ফাইল নিষ্পত্তি হবে অনলাইনে।

অধ্যাপক ড. প্রবীর কুমার ভট্টাচার্য্য বলেন,‘শিক্ষকরা হার্ড কপিতে কোনও আবেদন করলে তা অনেক সময় হারিয়ে যেত। মাসের পর মাস ফাইল ফেলে রাখা হতো। এই ব্যবস্থায় দুই দিনের বেশি ফাইল আটকে রাখার সুযোগ থাকবে না। ’

মাউশি সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষকদের সাধারণ ছুটিসহ বিশেষ ছুটি অনুমোদনের জন্য দফতরে দফতরে ঘুরতে হতো। প্রেষণ বা লিয়েনের আবেদন পড়ে থাকতো মাসের পর মাস। অভিযোগ রয়েছে,বর্ধিত ইনক্রিমেন্টের অনুমোদন দিতে এসব শিক্ষককে অনেক সময় আর্থিক সুবিধা দিতেও বাধ্য করেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অসাধু কর্মকর্তারা। না দিলে করা হয় হয়রানি।

অধ্যাপক ড. প্রবীর কুমার ভট্টাচার্য্য বলেন, ই-নথি চালু হলে এ ধরনের কোনও অভিযোগ থাকবে না। শিক্ষা মন্ত্রণালয় বা মাউশিতে দিনের পর দিন ঘুরে শিক্ষকদের তদবির করার প্রয়োজন হবে না।

এই বিভাগের আরো খবর