• শনিবার   ১১ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২৭ ১৪২৬

  • || ১৭ শা'বান ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
বঙ্গবন্ধুর খুনি মাজেদের প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ নিয়োগ পেলেন নতুন আইজিপি বেনজীর, র‌্যাব মহাপরিচালক মামুন মাজেদের মৃত্যু পরোয়ানা জারি যারা সাহায্য চাইতে পারবে না তাদের তালিকা করতে বললেন প্রধানমন্ত্রী দেশে করোনায় আরও ৫ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত বেড়ে ১৬৪ কারাগারে বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনি ক্যাপ্টেন মাজেদ বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি ক্যাপ্টেন মাজেদ আদালতে বঙ্গবন্ধু হত্যা: আত্মস্বীকৃত খুনি ক্যাপ্টেন মাজেদ গ্রেফতার চিকিৎসকরা কেন চিকিৎসা দেবে না, এটা খুব দুঃখজনক : প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘদিন জেলখাটা আসামিদের মুক্তির নীতিমালা করার নির্দেশ রমজানে সরকারি অফিস ৯টা থেকে সাড়ে ৩টা প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়ন হলে অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে: অর্থমন্ত্রী করোনা: ৭৩ হাজার কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা প্যাকেজ ঘোষণা বেসরকারি হাসপাতাল চিকিৎসা না দিলেই ব্যবস্থা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী প্রতি উপজেলা থেকে নমুনা সংগ্রহ করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর আজ থেকে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে সেনাবাহিনী মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে সমালোচনা করছে বিএনপি : কাদের দেশে আক্রান্তদের মধ্যে এ পর্যন্ত ২৬ জন সুস্থ : স্বাস্থ্যমন্ত্রী সেনাবাহিনী কতদিন মাঠে থাকবে সরকার বিবেচনা করবে: সেনাপ্রধান ঘরে বসে পড়াশোনা করতে হবে, শিক্ষার্থীদের প্রধানমন্ত্রী
৩১

আমার বাবা রক্ত বেচে ইত্তেফাক ছাপার কাগজ কিনেছেন: দীপু মনি

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

 


শিক্ষামন্ত্রী ডাক্তার দীপু মনি বলেছেন, আমার বাবা এম এ ওয়াদুদের কাছে আমরা যা ছিলাম ইত্তেফাক তারচেয়েও বেশি কিছু ছিল। এমন অনেকদিন গেছে ইত্তেফাকের ছাপার কাগজ কেনার পয়সা নেই। সোহরাওয়ার্দী সাহেবের কাছ থেকে হয়তো টাকা আসেনি অথবা কোনো কারণে কাগজ বাকিতে দিচ্ছে না। তখন তিনি নিজে ঢাকা মেডিকেল কলেজে গিয়ে রক্ত বিক্রি করে টাকা এনে ইত্তেফাক ছাপার জন্য কাগজ কিনেছেন।


রোববার (১৬ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবে চন্দ্রাবতি একাডেমি আয়োজিত শহীদ সাংবাদিক সিরাজুদ্দীন হোসেন স্মরণে 'মঞ্চে-নেপথ্যে' এবং 'সিরাজুদ্দীন হোসেন ও সমকালীন সাংবাদিকতা' নামে দুটি বইয়ের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন দীপু মনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমার বাবা প্রথম ছাত্রলীগ কাউন্সিলের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ও আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য। ইত্তেফাকের সঙ্গে তার সম্পর্কটা দলীয় কারণে। ইত্তেফাকে কাজ ছিল তার নেতার দেওয়া দ্বায়ীত্ব। সেই হিসবেই তিনি কাজ করতেন।

'হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী সাহেব দলীয়ভাবে ৬ ছাত্রনেতাকে ডেকে বলেছিলেন- তোমরা পত্রিকা (ইত্তেফাক) চালাতে পারবে কিনা? বাবা ছিলেন ওই ছয়জনের একজন। তারা রাজি হয়েছিলেন। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত ইত্তেফাকের সঙ্গে জড়িত ছিলেন তিনি। বাকি ৫ জন বিভিন্ন সময়ে ইত্তেফাক ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন। বাবা সারাটা জীবন ইত্তেফাক পত্রিকায় কাটিয়েছেন। রাতের বেলা কাজ শেষে তিনি ইত্তেফাকে অফিসের টেবিলেই ঘুমিয়ে পড়তেন আর সকালে সাইকেল নিয়ে রাস্তায়-রাস্তায় পত্রিকা বিলি করতেন।

অনুষ্ঠানে শহীদ সাংবাদিক সিরাজুদ্দীন হোসেন সম্পর্কে স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে দীপু মনি বলেন, বাবার সঙ্গে সিরাজ কাকার সম্পর্ক সম্পাদক আর কর্মীর মতো ছিল না। তা ছিল রক্তের সম্পর্কের মতো। আমরা ওনাকে সিরাজ কাকা বলে ডাকতাম। ওনার ছেলে-মেয়ে আমার বাবাকে ওয়াদুদ কাকা বলে ডাকতেন।

প্রকাশনা অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, দৈনিক জনকণ্ঠের উপদেষ্টা সম্পাদক তোয়াব খান, জাতীয় জাদুঘর বোর্ড অব ট্রাস্টির সভাপতি শামসুজ্জামান খান, বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবিবুল্লাহ সিরাজী প্রমুখ।

জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর