বৃহস্পতিবার   ২১ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৬ ১৪২৬   ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
সারাদেশের পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন লিখতে হবে স্পষ্ট অক্ষরে: হাইকোর্ট আজ সশস্ত্র বাহিনী দিবস শাহজালালে পৌঁছেছে পাকিস্তানের ৮২ টন পেঁয়াজ ক্রিকেটের সঙ্গে টেনিসও এগিয়ে যাচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী রিফাত হত্যা : চার্জ গঠন ২৮ নভেম্বর বরিশালে ৪৫ টাকা দরে টি‌সি‌বির পেঁয়াজ বি‌ক্রি, উপচেপড়া ভিড় র‌্যাব-৮ এর অভিযানে শীর্ষ সন্ত্রাসী গ্রেফতার কর্মবিরতি প্রত্যাহার, বরিশালে বাস চলাচল স্বাভাবিক ৭ ডিসেম্বর বিচারবিভাগীয় সম্মেলনে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী বরিশাল বোর্ডে এসএসসিতে বৃত্তি পাচ্ছেন ১৪১৭ শিক্ষার্থী কবি সুফিয়া কামালের মৃত্যুবার্ষিকী আজ বরিশাল বোর্ডে এসএসসির ফরম পূরণে সময় বাড়লো জাতীয় অর্থনীতিতে নারীর অবদান সবচেয়ে বেশি: পলক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ট্রাক মালিকদের ফের বৈঠক আজ চক্রান্তকারীদের আইনের আওতায় আনা হবে: ওবায়দুল কাদের দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে জয় দিয়ে বছর শেষ করল ব্রাজিল দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী লবণের দাম বাড়ালে জেল-জরিমানা : বাণিজ্যমন্ত্রী লবণ নিয়ে গুজবে কান দিবেন না: শিল্প মন্ত্রণালয়
১০

আপনার ইমেইলেও থাকবে বসের নজরদারি!

প্রকাশিত: ২০ অক্টোবর ২০১৯  

 


বর্তমানে যোগাযোগ, ব্যবসায়িক বা দাপ্তরিক সবক্ষেত্রেই ইমেইলের ব্যবহার আবশ্যক হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই মাধ্যমটির গোপনীয়তা নিয়ে ব্যবহারকারীরা মোটামুটি সচেতন। এর ওপর নজরদারি কেউ পছন্দ করবেন বলে মনে হয় না। আর অফিসের বস যদি এ কাজটা করেন তবেতো আর কথা নেই।

কিন্তু আপনি মানুন আর না মানুন তাতে বসের কী যায় আসে? বস ঠিকই আপনার ইমেইল অ্যাকাউন্টে নজরদারি চালাতে পারবেন। তবে, বিষয়টি সব অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রে নয়, শুধুমাত্র প্রতিষ্ঠানের দেওয়া ইমেইল অ্যাকাউন্টে নজর রাখতে পারবেন বস।

জি সুইট হলো গুগলের কিছু সেবার ব্যবস্থাপনার সমন্বয়ে তৈরি একটি ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন। এর মধ্যে অন্যতম হলো- জিমেইল, গুগল ডকস, গুগল স্লাইডস, গুগল শিটস, গুগল ড্রাইভ, গুগল সাইটস, গুগল কারেন্টস, গুগল ফর্মস, গুগল ক্যালেন্ডার এবং হ্যাংআউট। এটি ২০০৬ সালের ২৮ আগস্টে সেবা দেওয়া শুরু করে।

ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলো অধিকাংশ ক্ষেত্রেই জি সুইট ব্যবহার করে। কারণ এটি ব্যবসায় উৎপাদন বাড়ানো, সমন্বয়, নিরাপত্তা বাড়াতে সাহায্য করে। ব্যক্তিপর্যায়ে যারা ইমেইল ব্যবহার করেন তারা এ সেবাগুলো বিনামূল্যেই পেয়ে থাকেন। অপরদিকে এর করপোরেট সেবাও রয়েছে। যা কর্মীরা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে পান।

এগুলো হলো প্রতিষ্ঠানের সুবিধার কথা। কিন্তু এ সেবা যদি কেউ ব্যক্তিগতভাবে ব্যবহার করেন তবে বসের কাছে গোমর ফাঁস হয়ে যেতে পারে। কারণ জি সুইটের অ্যাডমিন চাইলেই এর আওতাভুক্ত ব্যবহারকারীর গতিবিধির ওপর নজরদারি করতে পারবেন। যদিও জি সুইটের সেবা প্রতিষ্ঠানের কাজে গতি আনে। কিন্তু ব্যক্তিগতভাবে ব্যবহার করলে এর ব্যবহারকারীর গোপনীয়তা হুমকির মুখে পড়তে পারে। এর অর্থ দাঁড়ায় আপনি যদি অফিসের দেওয়া জি সুইটের সেবাগুলো ব্যবহার করেন তবে আপনার বস চাইলেই আপনার ওপর নজরদারি করতে পারবেন। এমনকি চেক করতে পারবেন ড্রাফটও। তবে, এর লিমিট প্রতিষ্ঠানের প্ল্যানের ওপর নির্ভর করবে। যদিও গুগল আগে থেকেই জানিয়ে রেখেছে, এ প্রক্রিয়ার মধ্যে যে কারও তথ্যের ওপর নজরদারি করা সম্ভব।

গুগল তার বিবৃতিতে বলেছে, জি সুইটের সেবা ব্যবহারকারীদের জন্য রয়েছে একটি গুরুত্বপূর্ণ বার্তা। এটি হলো-জি সুইটের অ্যাডমিন আপনার সব ধরনের তথ্য দেখতে পারবেন।

এই বিভাগের আরো খবর