বুধবার   ১৬ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ১ ১৪২৬   ১৬ সফর ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
একাদশ সংসদের পঞ্চম অধিবেশন শুরু ৭ নভেম্বর যেখানে দুর্নীতি-টেন্ডারবাজি সেখানে অভিযান- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ন্যাম সম্মেলনে যোগ দিতে বাকু যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী রিফাত হত্যা : প্রধান আসামির জামিন নামঞ্জুর বিএসএমএমইউয়ে বিশ্ব অ্যানেসথেসিয়া ও মেরুদণ্ড দিবস পালিত মুন্সিগঞ্জের ১৩টি সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেসের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী সরকারের ধারাবাহিকতার কারণেই উন্নয়ন প্রকল্প গতিশীল: প্রধানমন্ত্রী আজ কম্বোডিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ বিশ্ব অ্যানেসথেসিয়া দিবস আজ মিনিস্ট্রিয়াল কনসালটেশনে যোগ দিতে আমিরাতে প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী বিশ্ব খাদ্য দিবস আজ নিরাপদ খাদ্য নি‌শ্চিত করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর বরিশালে ২৭ জেলের জেল-জরিমানা কখন গোসল করা ভালো, সকালে না রাতে? জনপ্রশাসনের ৬ কর্মচারী মাসের সেরা কর্মী নির্বাচিত নতুন প্রজন্মকে পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ গড়ার আহ্বান দেশের প্রথম বাণিজ্যিক সৌর প্লান্টের উৎপাদন শুরু পাকিস্তান সফরে প্রিন্স উইলিয়াম ও কেট মিডলটন বদলে গেল বাংলা বর্ষপঞ্জি, বুধবার ৩১ আশ্বিন
৫৬

আগৈলঝাড়ার পুজায় নির্মিত সুদৃশ্য তোরণ আলোড়ন সৃষ্টি করেছে

প্রকাশিত: ৮ অক্টোবর ২০১৯  

আগৈলঝাড়া প্রতিনিধিঃ ব্যাপক আয়োজনে দেশের সবচেয়ে বেশি পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে বরিশালের আগৈলঝাড়ায়। পাঁচটি ইউনিয়নের পুজা মন্ডপের সংখ্যা ১৫৪টি। আজ মঙ্গলবার দশমী তিথিকে প্রতীমা বিসর্জনের মদ্য দিয়ে পুজার আচার শেষ হয়েছে। এ বছর দর্শনার্থীদের মধ্যে আলোড়ণ সৃষ্টি করেছে বারপাইকা সার্বজনীন পূজা মন্দিরের সুদৃশ্য তোরণ, দেবাদিদেব মহাদেবের স্থাপন করা বিশাল মূর্তির নীচ দিয়ে সুরঙ্গ পথে প্রবেশ ও পুজা মন্দির থেকে বের হবার পথে পদ্মা সেতুর আদলে নির্মিত ১৫০ফুট দীর্ঘ সেতু। এই সুরঙ্গ পথের মধ্যেই স্থাপন করা হয়েছে কৃত্রিম পাহাড় ও বিভিন্ন দেব-দেবীর মুর্তি।  
বারপাইকা গ্রামের যুব সমাজের উদ্যোগে নয়নাভিরাম সুদৃশ্য নির্মাণ শৈলীর কাজ করেছেন এলাকার তিন হাজার স্বেচ্ছাশ্রম শ্রমিক। পুজার দুই মাস আগে থেকে তারা কাজে লেগেছেন। তাদের সেই শ্রম সার্থক করেছে স্থনীয় দর্শনার্থীই নয়; ভারত থেকে আসা দর্শনার্থীদের ভূয়ষী প্রসংশায়।
প্রতিদিন আগৈলঝাড়াসহ পার্শ্ববর্তী জেলা ও উপজেলার হাজার হাজার দর্শনার্থীরা ভীর করছেন বারপাইকা কেন্দ্রীয় সার্বজনীন পূজা মন্ডপের নয়নাভিরাম তোরন দেখার জন্য।
মন্দির কমিটির সভাপতি নিহার রঞ্জন রায় জানান, ১৯৬৭ সাল থেকে রতœপুর ইউনিয়নের বারপাইকা গ্রামে সার্বজনীন দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। বারপাইকা যুবসমাজের উদ্যোগে গত সাত বছর যাবৎ বাহারী ভিন্ন রকমের আয়োজনে পুজার ব্যাপকতা লাভ করছে। এবছর দূর্গা পূজা উপলক্ষে দুই মাস আগে থেকে মন্দিরের সামনে সুদৃশ্য তোরন বা গেট নির্মানের কাজ শুরু করে এলাকাবাসী। প্রতিদিন ৫০ থেকে ৬০ জন যুবক থেকে চার হাজার স্বেচ্ছাশ্রমে তিল তিল করে দিনে ও রাতে বাঁশ, কাঠ, কাপড় ও কশীটসহ আনুসাঙ্গিক মালামাল দিয়ে দুই মাস কাজ করে নির্মান করেছে আজকে সু-দৃশ্য নয়নাভিরাম তোরণ (গেট), পদ্মা সেতুর আদলে দেড়শ ফুট লম্বা পদ্মা সেতু।
এই সেতুর এক দিকে রেলিংএ রয়েছে প্রধান মন্ত্রীর ভিশন ২০২১ বিভিন্ন উন্নয়নের চিত্র এবং অপর পাশে রয়েছে গ্রাম বাংলার হারিয়ে যাওয়া বিভিন্ন চিত্র।
দুদৃশ্য তোরণ দেখতে ভারত থেকে এসেছেন সরস্বতী বেপারী ও রঙ্গলাল বাড়ৈ। তারা নয়নাভিরাম গেট দেখে অভিভুত হয়েছেন বলে জানান। সাথে মন্দির আঙ্গিনায় সন্ধ্যার পর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলা মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেও মুগ্ধ হয়েছেন বলে জানান তারা।
গেট ও পুজা দেখতে আসা পটুয়াখালীর বিশ্বজিৎ চ্যাটার্জী, ঢাকা থেকে আসা পলাশ সরকার বলেন, তারা পুজার সকল আয়োজন দেখে সত্যিই মুগ্ধ হয়েছেন। বিশেষ করে তোরন।
মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক দীপঙ্কর বাড়ৈ জানান, পূজা উলক্ষে যে আয়োজন হয়েছে তাতে প্রায় ১৫-২০লাখ টাকা খরচ হতো। তবে এলাকাবাসীর সহযোগীতায় স্বেচ্ছশ্রমে কাজ করায় খরচ অনেক কম হয়েছে। বারপাইকা গ্রামসহ পার্শ্ববর্তী গ্রামের লোকজনের সম্পৃক্ততার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, মন্দিরের সাজসজ্জা ও তোরন নির্মানে ৫ শতাধিক বাঁশ ও ২৫টি গাছ ব্যবহৃত হয়েছে।
আগৈলঝাড়া উপজেলা পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বারপাইকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুনিল কুমার বাড়ৈ বলেন, ১৫৪টি মন্দিরে পুজার মাধ্যমে বরিশাল বিভাগের তো নিশ্চই; দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি পূজা হচ্ছে আগৈলঝাড়ায়। এর মধ্যে বারপাইকা কেন্দ্রীয় সার্বজনীন পূজা মন্ডপে বিগত কয়েক বছর যাবত নয়নাভিরাম আয়োজন করে আসছে। যা সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর