রোববার   ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯   পৌষ ১ ১৪২৬   ১৭ রবিউস সানি ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
স্বেচ্ছাসেবক ও শৃঙ্খলা উপ-কমিটির সভা আজ হঠাৎ পড়ে গেলেন মোদী সিটি ভোটে চূড়ান্ত প্রস্তুতি ইসির অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে আওয়ামী লীগ এখন শক্তিশালী : ভূমিমন্ত্রী মেজাজ হারিয়ে দুই ঘণ্টায় ১২৩ টুইট করে ট্রাম্পের নতুন রেকর্ড! বিজয় দিবসে আসছে সাবিনা ইয়াসমিনের গান নারীর ক্ষমতায়নে বিস্ময়কর রেকর্ড হাত থেকে কোরআন পড়ে গেলে করণীয় সানিয়া মির্জার বোনের বিয়েতে বসেছিল চাঁদের হাট! বিএনপির ঘাড়ে ভর করেছে বুদ্ধিজীবী হত্যাকারীদের প্রেতাত্মা ‘বোরকা পরে বাংলাদেশ থেকে এসেছি’ বিজেপি এমপির টুইটে ভারতে তোলপাড় বন্দে আলী মিয়ার জন্ম ‘২ ঘণ্টার মধ্যে উড়ে যাবে সালমান খানের গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্ট!’ গরুর খামারে কম্বল দান করলেই মিলবে বন্দুকের লাইসেন্স! আজ প্রকাশ হবে রাজাকারদের তালিকা সোশ্যাল মিডিয়া বিশেষজ্ঞ খুঁজছেন ব্রিটেনের রানি শামীমের ৩৬৫ কোটি টাকা, খালেদের ৩৪, সম্রাটের ‘তেমন নেই’ মাকাসিদুশ শরিয়া তত্ত্বের প্রয়োগ ও অপপ্রয়োগ লড়েছেন মোসাদ্দেক, জিতেছে ঢাকা প্রজন্ম থেকে প্রজন্মকে সচেতন থাকতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
৫০

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আসছে নতুন চমক

প্রকাশিত: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

কেন্দ্রীয় সম্মেলনের ২ মাস বাকি থাকলেও সম্পন্ন হয়নি আওয়ামী লীগের ৭৮টি জেলা ও মহানগরী ইউনিটের মধ্যে ৭৭টির সম্মেলন। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠেছে ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের ব্যাপারে।
তবে শঙ্কা উড়িয়ে দিয়ে নেতারা বলেছেন, সম্মেলন উপলক্ষে নতুন উদ্যোমে সাংগঠনিক তৎপরতা শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। এবারের সম্মেলনে নতুন নেতৃত্ব আসছে বলেও ইঙ্গিত দেন তারা। আগামী ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে মেয়াদোত্তীর্ণ সব কমিটির সম্মেলন সম্পন্ন করতেও নির্দেশ দিয়েছে হাইকমান্ড।
২০১৬ সালের অক্টোবরে অনুষ্ঠিত হয় আওয়ামী লীগের সর্বশেষ সম্মেলন। এরপর পুরো সময়ে সম্পন্ন হয়েছে মাত্র একটি জেলা ইউনিটের সম্মেলন।
দলের হাইকমান্ড থেকে নির্দেশ এসেছে, মূল সম্মেলনের আগে ডিসেম্বরের প্রথম ভাগেই মেয়াদোত্তীর্ণ সব ইউনিটের সম্মেলন সম্পন্ন করতে হবে।
চ্যালেঞ্জিং হলেও, নির্ধারিত সময়ে এ কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব বলে জানালেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।
তিনি বলেন, জেলা থেকে আসা কাউন্সিলরদের লিস্টটাই আমাদের কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আশা করি আগামী ২ মাসের মধ্যেই আমরা সব লিস্ট তৈরি করে ফেলতে পারব। এ ছাড়াও যে সমস্যাগুলো আছে সেগুলোও সমাধান হয়ে যাবে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল করতে এসব কোনো বাধাই নয়। সম্মেলন সফল করতে এরই মধ্যে ৮ ভাগে ভাগ হয়ে দেশব্যাপী সাংগঠনিক সফর শুরু করেছে দলটি। বিভিন্ন উপ-কমিটি গঠন করে আগামী সপ্তাহের মধ্যেই গঠন করা হবে সম্মেলনের সবগুলো প্রস্তুতি কমিটি। আওয়ামী লীগের এ নীতি নির্ধারক বলছেন, নির্বাচনসহ নানা কারণে সাংগঠনিক স্থবিরতা বিপরীতে নতুন চমক থাকবে এবারের সম্মেলনে।
আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, দলকে চাঙা করতে হলে মেধাবী ও তরুণ নেতৃত্ব প্রয়োজন। আমাদের নেত্রী সেটিকে মাথায় রেখেই এগুচ্ছেন। তিনি সংসদেও নতুনদের সুযোগ দিয়েছেন, দলকে চাঙা করতে আগামীতেও অনেক নতুন মুখকে সমানে নিয়ে আসবেন। কার হাতে দলটি ছেড়ে দিয়ে যাবেন, এটিই এখন নেত্রীর চাওয়া। 
কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় অক্টোবরে সম্মেলন করার কথা থাকলেও ডিসেম্বরের ২১ থেকে ২২ তারিখ কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত নেয় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ।

এই বিভাগের আরো খবর