মঙ্গলবার   ২১ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৮ ১৪২৬   ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
প্রয়োজনে শিক্ষকদের বিদেশে পাঠান : প্রধানমন্ত্রী শিল্প-কারখানার পাশে জলাধার থাকতে হবে: প্রধানমন্ত্রী কারিগরি শিক্ষার উন্নয়নসহ একনেকে ৮ প্রকল্প অনুমোদন যশোর-৬ আসনের এমপি ইসমত আর নেই,প্রধানমন্ত্রীর গভীর শোক আবরার হত্যা : অভিযোগ গঠন ৩০ জানুয়ারি শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টায় পাঁচ জনের মৃত্যুদণ্ড ভারত থেকে পেঁয়াজ কেনার কোনও সুযোগ নেই: বাণিজ্যমন্ত্রী বিশ্বের সামনে বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল : তোফায়েল আহমেদ দেশে মুক্তিযুদ্ধের পতাকাবাহী সরকার প্রতিষ্ঠিত: রাষ্ট্রপ‌তি সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন আইসিসির সিইও সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় এমপি মান্নানের প্রথম জানাজা সম্পন্ন সিপিবি’র সমাবেশে বোমা হামলা : ১০ জঙ্গির ফাঁসি এমপি মান্নানের মরদেহে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা আদালতে সিপিবির সমাবেশে বোমা হামলা মামলার ৪ আসামি চীনের জিনজিয়াং প্রদেশে শক্তিশালী ভূমিকম্প শহীদ আসাদ দিবস আজ বৈষম্য বিলোপ আইনের খসড়া তৈরির কাজ চলছে: আইনমন্ত্রী মানবতার কল্যাণ কামনায় শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমা আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে লাখো মুসল্লি তুরাগতীরে পুরো পরীক্ষাই পেছাবে, নতুন সূচি আজ : শিক্ষামন্ত্রী
৪৭

অনুপ্রবেশকারীরা ঘটনা ঘটায় আর দায় পড়ে ছাত্রলীগের ওপর: তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

 


ছাত্রলীগে কিছু অনুপ্রবেশকারী ঢুকেছে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, অনুপ্রবেশকারীরা নানা সময় নানা ঘটনা ঘটায়। সেগুলোর দায় ছাত্রলীগের ওপর এসে পড়ে। এ বিষয়ে প্রকাশিত সব খবর সঠিক নয়। 

বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। 
তথ্যমন্ত্রী বলেন, গয়েশ্বর বাবু (বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়) বলেছেন, মানববন্ধন নয়, দানববন্ধন করতে হবে। দানববন্ধন বলে তিনি কোনো অশুভ শক্তির ইঙ্গিত দিচ্ছেন। কারণ, বিএনপি অতীতে বিভিন্ন সময় দানবীয় রূপ ধারণ করেছে। ২০১৩, ১৪, ১৫ সালে, এমনকি ২০১৮ সালের নির্বাচনের আগেও তাদের কার্যালয়ের সামনে বিএনপি কর্মীদের দানবীয় রূপ দেখেছি। তারা মানুষের ওপর পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করেছে, সরকারি সম্পত্তি পুড়িয়েছে, পবিত্র কোরআন শরিফ পুড়িয়েছে, তারা শত শত মানুষকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। দানববন্ধব করতে হবে- গয়েশ্বর বাবু এ ঘোষণার মধ্য দিয়ে আবারও সেই একই রূপ ধারণের ইঙ্গিত দিচ্ছেন কি না, সেটিই হচ্ছে প্রশ্ন। 

তিনি বলেন, বাংলাদেশের জনগণ অতীতের মতো তাদের (বিএনপি) আর দানবীয় রূপ ধারণ করতে দেবে না। কারণ, বিএনপি এসব অপকর্ম করেছিল বিধায় মানুষ তাদের প্রত্যাখ্যান করেছে। তারা ২০১৪ ও ১৮ সালের নির্বাচনে প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। সুতরাং, একই কাজ তারা আর করতে পারবে না। আমি তাদের অনুরোধ জানাবো, ভবিষ্যতে দানবীয় রূপ ধারণের চিন্তা না করে বরং নিয়মতান্ত্রিকভাবে রাজনীতির পথে হাঁটার। সেটি তাদের ও জনগণের জন্য শুভ হবে।

ছাত্রলীগের কমিটি থাকছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে হাছান মাহমুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই ছাত্রলীগের কমিটির বিষয়টি দেখাশোনা করেন। তিনিই ছাত্রলীগের কমিটি থাকবে কি না এ ব্যাপারে  সিদ্ধান্ত নেবেন। তবে, ছাত্রলীগের ব্যাপারে ঢালাওভাবে যেসব অভিযোগ করা হয়, সেসব সত্য নয়। ছাত্রলীগে কিছু অনুপ্রবেশকারী ঢুকেছে। তারা নানা সময় নানা ঘটনা ঘটায়। সেগুলোর দায় ছাত্রলীগের ওপর এসে পড়ে। সবসময় যে খবর প্রচারিত হয়, তার সবগুলো সঠিক নয়। 

বিএনপি বলছে আওয়ামী লীগ একটা মিথ্যাচারের কোম্পানি- এ বিষয়ে তিনি বলেন, বিএনপি হচ্ছে লিমিটেড কোম্পানি আর সেখানকার নেতারা হচ্ছেন ভাড়াটিয়া রাজনীতিবিদ। বিএনপি রাজনীতিকে ব্রত হিসেবে নেয় না। তারা একে ‘লস অ্যান্ড প্রফিট’ (লাভ-লোকসান) হিসেবে দেখে। লিমিটেড কোম্পানির যেমন লস অ্যান্ড প্রফিটের ব্যালেন্স শিট থাকে, তাদেরও তেমন। ফুটবল খেলায় যেমন খেলোয়াড়রা ভাড়ায় খাটেন, তেমনি বিএনপির বেশিরভাগ নেতা হচ্ছে ভাড়ায় খাটা রাজনীতিবিদ। তাদের অতীত দেখলে দেখা যায়, অনেক নেতাই অন্য দল করতেন। অন্য দল থেকেই সেখানে গেছেন, অর্থাৎ ভাড়াখাটা রাজনীতিবিদ। আর এটা (বিএনপি) একটা লিমিটেড কোম্পানি। 

মন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ চায় বিএনপি একটি শক্তিশালী দল হিসেবে টিকে থাক। আমরা চাই, গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করার জন্য শক্তিশালী বিরোধীদল থাক। বিএনপি ও জাতীয় পার্টি শক্তিশালী দল হিসেবে থাক, আমরা সেটিই চাই। কিন্তু, বিএনপিকে তো অন্য কারও ধ্বংস করার দরকার নেই। বিএনপি নিজেই বিভিন্ন সময় আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যেমন, ২০১৪ সালের নির্বাচনে অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত ছিল আত্মহননের। ২০১৮ সালের নির্বাচনে গেলো না, সেটাও আত্মহননের সিদ্ধান্ত। সুতরাং, বিএনপি নিজেরাই নিজেদের ধ্বংস করেছে। অন্য কারও প্রয়োজন নেই।

বিএনপি কীভাবে নিজেদের ধ্বংস করছে প্রশ্নের জবাবে হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপি বড় সমাবেশ করুক, আমরা সেটাই চাই। কিন্তু, তারা ধারাবাহিকভাবে ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছে, সে কারণে সংসদে তাদের আসন হাতে গোনা। বিএনপির আসন তো আরও বেশি হওয়ার কথা ছিল। 

এই বিভাগের আরো খবর